২ ফেব্রুয়ারি ঐক্যফ্রন্টকে গণভবনে আমন্ত্রণ প্রধানমন্ত্রীর

ফাইল ছবি।

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক, পিটিবিনিউজ.কম
জাতীয় ঐক্যফ্রন্টকে আগামী ২ ফেব্রুয়ারি গণভবনে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ শনিবার (২৬ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের দুই নেতা মোস্তাফা মোহসীন মন্টু ও সুব্রত চৌধুরী সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান। তবে প্রধানমন্ত্রীর সেই আমন্ত্রণে তাঁরা যাচ্ছেন না বলেই জানিয়েছেন।

গণভবনের একটি সূত্র জানিয়েছে, ভোটের আগে সংলাপে অংশ নেওয়া রাজনৈতিক দলগুলোর নেতা এবং আওয়ামী লীগের নির্বাচন সংশ্লিষ্ট নেতাদের নিয়ে ২ ফেব্রুয়ারি চা চক্রের আয়োজন করছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

ঐক্যফ্রন্টের অন্যতম নেতা এবং গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মোহসীন মন্টু বলেন, প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে একটা দাওয়াত কার্ড এসেছে দেখেছি। কখন বা কোন সময় তা দেখিনি।

ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ড. কামাল হোসেন এখন দেশে নেই। তিনি চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুরে অবস্থান করছেন। রোববার তাঁর দেশে ফেরার কথা আছে। ঐক্যফ্রন্ট সূত্র বলছে, ড. কামাল দেশে ফেরার পর এই আমন্ত্রণের বিষয়ে আনুষ্ঠানিক আলোচনা হবে।

ঐক্যফ্রন্টের সবচেয়ে বড় শরিক দল বিএনপি। এছাড়া অন্য দলগুলো হলো গণফোরাম, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ, জেএসডি, নাগরিক ঐক্য।

গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি সুব্রত চৌধুরী চিঠি পাওয়ার বিষয়টি জানিয়েছেন। তিনি বলেন, শুভেচ্ছা বিনিময়ের জন্য চিঠি পাঠিয়েছেন বলে শুনেছি।

সুব্রত চৌধুরী বলেন, আমরা একাদশ সংসদ নির্বাচনের পর এ নিয়ে সংলাপের প্রস্তাব দিয়েছিলাম। ওই নির্বাচন প্রহসনের নির্বাচনে পরিণত হয়েছে। আমরা তাই এটা নিয়ে সংলাপের প্রস্তাব দিয়েছিলাম। কিন্তু এখন শুভেচ্ছা বিনিময়ের জন্য ডাকা হয়েছে। আমরা সেখানে যাচ্ছি না।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে গত বছরের নভেম্বরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে ঐক্যফ্রন্টের নেতাদের একাধিকবার সংলাপ হয়। ওই সংলাপে নির্বাচন নিয়ে কথাবার্তা হয়। নির্বাচনে আওয়ামী লীগ বিপুল বিজয় পায়। তবে নির্বাচনকে প্রত্যাখ্যান করেছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। তারা এ নির্বাচন বাতিল করারও দাবি জানায়।

গত ১৩ জানুয়ারি আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, আবারো সংলাপে বসবেন প্রধানমন্ত্রী। কাদের বলেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে যেসব রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সংলাপ হয়েছিলো, তাদের আবার আমন্ত্রণ জানাবেন প্রধানমন্ত্রী।

অবশ্য এর একদিন পরেই কাদের বলেন, নির্বাচন নিয়ে সংলাপ নয়, রাজনৈতিক দলগুলোকে শুভেচ্ছা বিনিময়ের জন্য ডাকা হবে।

তবে কাদেরের বক্তব্যের পরদিন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ও প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম বলেন, আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আবারও একটি সংলাপ করবেন।

প্রধানমন্ত্রী সংলাপে ডাকবেন কি না— এই অবস্থার মধ্যে জাতীয় সংলাপ আয়োজনের কথা জানায় ঐক্যফ্রন্ট। আগামী ৬ ফেব্রুয়ারি এ সংলাপের দিন ধার্য আছে বলে জানা গেছে।

এদিকে দুপুরে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, নভেম্বরের প্রধানমন্ত্রী সংলাপে নির্বাচন নিয়ে যে কথা দিয়েছিলেন তার একটি রাখেননি।

গত ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত একাদশ সংসদ নির্বাচনের ফল প্রত্যাখ্যানের পর ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষনেতা কামাল হোসেন পুনর্নির্বাচনের দাবি তুলে ফের রাজনৈতিক দলগুলোকে সংলাপ ডাকতে প্রধানমন্ত্রীকে আহ্বান জানিয়েছিলেন। দশম সংসদ নির্বাচন বর্জনকারী বিএনপির আহ্বানের প্রেক্ষাপটে এবার ভোটের আগে গত অক্টোবরে আকস্মিকভাবেই রাজনৈতিক দলগুলোকে সংলাপে ডাকেন শেখ হাসিনা।

বিএনপিসহ ঐক্যফ্রন্টের নেতাদের তিন দফায় আলোচনার সুযোগ দেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী; তাতে বিভিন্ন আশ্বাস পাওয়ার কথা জানিয়ে ভোটে অংশ নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় বিএনপি। কিন্তু নির্বাচনে ব্যাপক কারচুপির অভিযোগ তুলে বিএনপি নেতারা বলছেন, তাদের দেয়া আশ্বাসের কিছুই বাস্তবায়ন হয়নি।