জনসমর্থনে এগিয়ে ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী জেসমিন নাহার

ফাইল ছবি।

আসাদুজ্জামান সাজু, লালমনিরহাট প্রতিনিধি, পিটিবিনিউজ.কম
একাদশ জাতীয় সংসদের রেশ কাটতে না কাটতেই শুরু হয়েছে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের ঢামাঢোল। নির্বাচন কমিশনের ঘোষিত তথ্য অনুযায়ী আগামী মার্চে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে প্রথম দফার উপজেলা নির্বাচন। উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের তফসীল ঘোষণা হতে পারে ফেব্রুয়ারিতেই। আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী জেসমিন নাহার। মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে মেধাবী ও যোগ্য প্রার্থী হিসেবে আলোচনায় এগিয়ে রয়েছেন তিনি। উপজেলার বিভিন্ন এলাকার লোকজনের থেকে পাচ্ছেন স্বতঃস্ফূর্ত সাড়া। সাধারণ মানুষের মধ্যে তার যে জনপ্রিয়তা রয়েছে তাতে তাকে দলীয় প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন দিলে তার বিজয়ী হওয়া প্রায় সুনিশ্চিত।

হাতীবান্ধা উপজেলার বড়খাতা ইউনিয়নের জোবের আলী নামে এক কৃষকের সঙ্গে কথা হলে তিনি বলেন, এবার উপজেলা নির্বাচনত হামার জেসমিন আপাক প্রার্থী চাই। জেসমিন আপা প্রার্থী হইলে ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হইবো। কেনো তিনি নির্বাচিত হতে পারেন এমন প্রশ্নের জবাবে ওই তিনি বলেন, জনপ্রতিনিধি না হয়াও হামার সুখ-দুঃখে সাহায্য-সহযোগিতা করে। তার সাতে দেখা হইলেই হাসি মুখে কতা কয়। বিপদে-আপদে তাক কাছত পাই।

মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে জেসমিন নাহার ইতোমধ্যে তার নির্বাচনী কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। তার প্রচার-প্রচারণা উপজেলাব্যাপী, ফেইসবুক, পোস্টার, ব্যানারে ছেয়ে গেছে। এছাড়াও তাকে বিভিন্ন সামাজিক উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডে অংশগ্রহণ করতে দেখা যাচ্ছে। উপকূলীয় এ জনপদের অবহেলিত নারীদের উন্নয়নে কাজ ও নদী ভাঙন কবলিত এই এলাকার মানুষের পাশে দাঁড়াতে নির্বাচনী মাঠে নেমেছেন তিনি। দলমত নির্বিশেষে হাতীবান্ধা উপজেলার সাধারণ মানুষ উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান হিসেবে দেখতে চায় জেসমিন নাহারকে।

ভাইস চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন প্রত্যাশী জেসমিন নাহার বলেন, নির্বাচনী মাঠে আমি একেবারই নতুন মুখ। দলীয় মনোনয়ন না পেলে সিদ্ধান্ত ছেড়ে দিব দলীয় নেতা-কর্মী ও জনগণের ওপর। তারা যদি আমাকে প্রার্থী হিসাবে চান তখন সিদ্ধান্ত নিবো। আমার রাজনীতি মুলত জনগণকে নিয়ে, আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আমি মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করতে চাই। আশা করি দল আমাকে মনোনয়ন দিয়ে নারী উন্নয়নে কাজ করার সুযোগ করে দিবে। আমি বর্তমান সরকারের উন্নয়নের ধারাকে এগিয়ে নিতে ঐক্যবদ্ধ সাধারণ মানুষকে সঙ্গে নিয়ে নিরলস ভাবে কাজ করতে চাই। সরকারি সকল অনুদান হতদরিদ্রদের মাঝে সমানভাবে বন্টন করবো। দলমত নির্বিশেষে এ এলাকার পিছিয়ে পরা নারীদের উন্নয়ন, তিস্তা নদীর ভাঙ্গন কবলিত মানুষের পাশে থেকে কাজ করতে চাই। সামাজিক ব্যাধি নারী নির্যাতন, বাল্যবিবাহ ও যৌতুক প্রথা বন্ধে কাজ করবো।

জানা গেছে, হাতীবান্ধা উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক সুলতান আহম্মেদ রাজনের সহধর্মিণী জেসমিন নাহার। তিনি ২০০৬ সালে এসএসসি, ২০০৮ সালে এইচএসসি ও রংপুর আইন কলেজ থেকে এলএলবিতে মাস্টার্স করেছেন।