বনানী কবরস্থানে চিরনিদ্রায় শায়িত জায়ান

ফাইল ছবি

নিজস্ব প্রতিবেদক, পিটিবিনিউজ
শ্রীলংকায় বোমা হামলায় নিহত আওয়ামী লীগের সভাপতি মণ্ডলীর সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিমের নাতি জায়ান চৌধুরীর মরদেহ রাজধানীর বনানী কবরস্থানে সমাহিত করা হয়েছে। আজ বুধবার বিকালে বাদ আসর বনানীর ক্লাব মাঠে জানাজা সম্পন্ন হওয়ার পর বনানী কবরস্থানে দাফন করা হয় ছোট্ট জায়ানকে।

এ সময় তার নানা শেখ সেলিমসহ পরিবারের সদস্যরা এবং বিভিন্ন রাজনীতিক নেতা ও শ্রেণি পেশার মানুষ উপস্থিত ছিলেন।

রোববার শ্রীলংকায় বোমা হামলায় নিহত আট বছরের জায়ানের মরদেহ বহনকারী শ্রীলংকান এয়ারলাইন্সের ইউএল-১৮৯ ফ্লাইটটি বুধবার দুপুর পৌনে ১টায় ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে।

বিমানবন্দরের টারমার্কে নাতি জায়ানের মরদেহ গ্রহণ করেন নানা শেখ সেলিম। এরপর জায়ানের মরদেহ শেখ সেলিমের বনানীর বাসায় নেওয়া হয়। এ সময় ফুপাত ভাই শেখ সেলিমের নাতিকে শেষবারের মতো দেখতে সেখানে উপস্থিত হন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। জায়ানকে শেষবারের মতো দেখতে উপস্থিত হন আরো অনেকে।

সপরিবারে শ্রীলংকা বেড়াতে গিয়ে রোববার ভয়ঙ্কর বোমা হামলায় অন্য অনেকের সঙ্গে নিহত হয় শিশু জায়ান। এ ঘটনায় তার বাবা মশিউল হক চৌধুরী প্রিন্স আহত হয়ে স্থানীয় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

বাবা-ছেলে সেখানকার সাংগ্রি লা হোটেলের নিচতলার রেস্তোরাঁয় সকালের নাশতা করতে গিয়ে বোমা হামলার শিকার হন। সে সময় হোটেল কক্ষে থাকায় বেঁচে গেছেন জায়ানের মা শেখ আমেনা সুলতানা সোনিয়া ও ছোট ভাই দেড় বছর বয়সী জোহান চৌধুরী। জায়ান রাজধানীর উত্তরার সানবিম ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের কেজি-২ শ্রেণির শিক্ষার্থী ছিলো।

গুরুতর আহত জায়ানের বাবা মশিউল হক চৌধুরী প্রিন্সকে এখনই দেশে ফেরানো যাচ্ছে না। তিনি কলম্বোর একটি হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন। স্বামীর পাশে থাকায় ছেলের মরদেহের সঙ্গে দেশে ফেরা হয়নি জায়ানের মা এবং শেখ সেলিমের মেয়ে শেখ আমেনা সুলতানা সোনিয়ারও।

জায়ানের অকাল মৃত্যুতে তার নানা শেখ সেলিমের বনানীর ২/এ নম্বর রোডের ৯ নম্বর বাড়িটিতে চলছে মাতম। জন্মের পর থেকে এই বাড়িতেই নানা-নানি, মামা ও মা-বাবাসহ পরিবারের অন্য সদস্যদের সঙ্গে থাকত জায়ান। ছোট্ট শিশুটিকে হারিয়ে তাই শোক কাটাতে পারছেন না স্বজনদের কেউই।

মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী, সংসদ সদস্য, আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও সংগঠনের নেতাকর্মী এবং বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ এই বাসাটিতে ছুটে এসেছেন স্বজনদের প্রতি সমবেদনা জানাতে।