কোচিং সেন্টার নয়, কোচিং বাণিজ্য বন্ধ করতে চাই: শিক্ষামন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক, পিটিবিনিউজ.কম
শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি বলেছেন, ‘কোচিং সেন্টার আর কোচিং বাণিজ্য এক নয়। তাই কোচিং বাণিজ্য চিহ্নিত করে তা বন্ধের পদক্ষেপ নিতে চাই।’

আজ বুধবার সচিবালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নে কোচিং বাণিজ্য নিয়ে কথা বলেন মন্ত্রী। এ সময় কোচিং বাণিজ্য বন্ধের আগে শিক্ষার মানোন্নয়নসহ বেশ কিছু বিষয়ে কাজ করার কথা বলেন তিনি।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘কোচিং সেন্টার নিয়ে দীর্ঘ দিন ধরেই কথা হচ্ছে। সেটি কিন্তু বন্ধ হয়নি এবং এর সঙ্গে অনেক রকমের কিছু জড়িত আছে। আমাদের চেষ্টা হলো- মানসম্মত শিক্ষা এবং সেই শিক্ষাটি দিতে হলে এর মধ্যে অনেক অনেক বিষয় জড়িত। আমি এই মুর্হূতে যদি বলি যে আর কোনো কোচিং সেন্টার চলবে না। কোচিং সেন্টার তো শুধু এক রকম নয়, অনেক রকমের কোচিং সেন্টার আছে।’

দীপু মনির বলেন, ‘মনে করেন যারা আইইএলটিস পড়ায়, যারা জিআরইর জন্য কোচিং করায়, যারা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির জন্য কোচিং করায় সেগুলো নিয়ে তো কোনো সমস্যা নেই, তাই না? এমনকি যদি কোনো কোচিং থাকে কেউ দুর্বল তার আরো একটু সহযোগিতা দরকার স্কুলের পড়ার বাইরেও সে সেখানে স্বেচ্ছায় যেতে পারে।’

মন্ত্রী বলেন, ‘কেউ যদি কোনো বিদ্যালয়ে না পড়ান কিংবা পড়ালেও নিজে আলাদাভাবে তার বাসায় কাউকে পড়ান, যে পিছিয়ে আছে তাকে একটু সহযোগিতা করেন কিংবা অনেক সময় স্কুলে এক্সট্রা ক্লাসের ব্যবস্থা করা হয়, এর কোনোটার মধ্যেই তো দোষের আসলে কিছু নাই। সমস্যা হচ্ছে যেখানে একজন শিক্ষক তার ক্লাসে শিক্ষাদান যতোখানি করার কথা, যতোখানি তার শিক্ষার্থীকে ক্লাসে শেখানোর কথা সেখানে পুরোপুরি মনোযোগী না হয়ে বা সময় না দিয়ে বা যত্ন না করে তিনি যখন বাইরে কোচিং করান এবং নিজের সেই শিক্ষার্থীদের বাধ্য করেন তার সেই কোচিংয়ে আসতে এবং না আসলে কখনও কখনও বলা হয় তাদেরকে ক্লাসে ফেল করিয়ে দেয়া হয়। অর্থাৎ যেটিকে আমরা বলছি কোচিং বাণিজ্য, সেটি খারাপ। অতএব আমাদের কোচিং বাণিজ্য কোনটি সেটিকে চিহ্নিত করে সেটিকে অবশ্যই বন্ধ করতে হবে।’

দীপু মনি বলেন, ‘স্কুলের মধ্যে পড়ার মান আরো উন্নত করতে হবে। এগুলো প্রত্যেকটা প্রত্যেকটির সঙ্গে সম্পৃক্ত। আমি যে কোনো একটিকে হঠাৎ ধরে বলতে পারি না এটা আজ থেকে বন্ধ, তাহলে বাকিটুকুর কী হবে?’

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘আবার এমনো আছে, আমাদের অনেক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী, অত্যন্ত মেধাবী শিক্ষার্থী তারা হয়তো আর্থিকভাবে তাদের পরিবারের অবস্থান শক্ত নয়। সেক্ষেত্রে তারা কিন্তু অনেকে এই টিউশনি করে বা কোচিং সেন্টারগুলোতে পড়িয়ে নিজেদের পড়াশোনা চালান। তারা যদি সঠিক যে টিউশনিগুলো, সঠিক যে কোচিংগুলো সেগুলো যদি করেন কোনো তো অসুবিধা নাই। কারণ তারা তো স্কুলের শিক্ষক না, তারা তো বাধ্য করছেন না। তারা তো স্কুলে ফাঁকি দিচ্ছেন না, তাই না? সুতরাং এটি কোনো একক বিষয় নয় বা একেবারে অন্য কিছুর সঙ্গে সম্পর্ক ছাড়া একটা আলাদা বিষয় না, অন্য সব কিছুর সঙ্গে সম্পৃক্ত।’

মন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের এখন প্রচেষ্টাটা হচ্ছে, এই পুরো প্রক্রিয়ায় প্রতিটি জায়গায় আমরা সঠিক ব্যবস্থাটিতে যেতে চাই এবং সেটিতে যেতে চাইলে আমরা ওই হঠাৎ একটিকে ধরে কোনো সিদ্ধান্ত নিলে হবে না। আমাদের একেবারে চেইনের পুরোটাতেই কাজ করতে হবে এবং সেটা হঠাৎ একদিন, দুদিন বা দুমাসে ছমাসে হবে না। সেটার জন্য আমাদের পুরো চিন্তাভাবনা করে কোথায় কোথায় কী জিনিস আমরা কীভাবে করবো, কীভাবে আমরা নিশ্চিত করবো যে একজন শিক্ষক ক্লাসে পুরোপুরি তার যে যত্ন নিয়ে পড়াবার কথা সেটি পড়াচ্ছেন, কী পড়াচ্ছেন, কীভাবে পড়াচ্ছেন সেটা দেখতে হবে। এই সময় বিষয়গুলো তার মধ্যে আছে।’

দীপু মনি বলেন, ‘এটা বলা সম্ভব না যে আজকে থেকে কোচিং বন্ধ কিংবা আমরা ছয় মাস বাদে বন্ধ করে দেবো, এ রকম কোনো কথা আসলে বলার এখন সুযোগ নেই। আমরা পুরো বিষয়টাকে দেখছি, পুরো বিষয়টাকেই নিয়ে চেষ্টা করছি আমরা যে মানে পৌঁছাতে চাই সে মানের জায়গাটিতে যেতে হলে আমরা ধাপে ধাপে কীভাবে যাবো, তারমধ্যে কোচিং একটা অংশ। পুরো বিষয়টি কিন্তু খুব সহজ সরলরেখার একটি বিষয় নয়, এরমধ্যে অনেক রকমের অনেক বিষয় জড়িত। সেজন্য আমাদের সবার এটা নিয়ে চিন্তা করে একটি জায়গায় পৌঁছাতে হবে।’

পাবলিক পরীক্ষার সময় কেন কোচিং সেন্টার বন্ধ করা হয় তার ব্যাখ্যায় মন্ত্রী বলেন, ‘তথ্য পেয়েছি প্রশ্ন ফাঁসের বিষয়টার সঙ্গে অনেক সময় অনেক কোচিং সেন্টারকে জড়িত থাকতে দেখা গেছে। সে কারণে পরীক্ষার সময় বন্ধ রাখার পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। কিন্তু আমি এখন যদি বলি আজকে পরীক্ষা শেষ কালকে থেকে আর কোনো কোচিং সেন্টার চলবে না। আমি তাহলে আমার বিদ্যমান যে ব্যবস্থাটা আছে সেটাতে যে পরিবর্তন আনা দরকার সেটি না এনেই তো আমি পদক্ষেপটি নিতে পারছি না। আমি বলব, অবশ্যই যে কোচিং বাণিজ্য সেটি সব সময়ের জন্যই বন্ধ থাকা উচিত। সেটা কোনোভাবেই হওয়া উচিত নয়। কিন্তু বাকি যে ধরনের কোচিংগুলো আছে সেগুলোতেতো কারো কোনো ধরনের অসুবিধা হওয়ার কথা না।’

সাবেক শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ শিক্ষা আইনের খসড়ায় সব ধরনের কোচিং নিষিদ্ধের বিধান রেখেছিলেন। ওই খসড়াটি এখন রিভিউ করবেন কি না- সেই প্রশ্নের সরাসরি কোনো উত্তর দেননি শিক্ষামন্ত্রী। তবে নানান কারণে শিক্ষা আইনের ওই খসড়াটি রিভিউ করা হচ্ছে বলেও জানিয়েছেন তিনি।