সেই সৌদি তরুণীকে আশ্রয় দিলো কানাডা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, পিটিবিনিউজ.কম
নিজের পরিবার ছেড়ে থাইল্যান্ডে পালিয়ে থাকা সৌদি তরুণী রাহাফ মোহাম্মদ আল-কানুনকে আশ্রয় দিয়েছে কানাডা। জাতিসংঘের পক্ষ থেকে তার নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বেগ জানিয়ে ‘বৈধ শরণার্থী’ হিসেবে আশ্রয় দেয়ার জন্য অস্ট্রেলিয়াকে অনুরোধ জানানোর পর কানাডা তাকে আশ্রয় দিতে রাজী হয়। খবর- বিবিসির।

এই সৌদি তরুণী থাইল্যান্ডে আসার পর নিজের হোটেল কক্ষে নিজেকে অবরুদ্ধ করে রাখেন, যাতে থাই কর্তৃপক্ষ তাকে ফেরত পাঠাতে না পারে। শেষ পর্যন্ত জাতিসংঘ শরণার্থী সংস্থা এতে হস্তক্ষেপ করতে বাধ্য হয়।

এই তরুণীর দাবি, তিনি ইসলাম ধর্ম ত্যাগ করায় তার জীবন এখন হুমকির মুখে।

বিবিসি বলছে, ব্যাংকক থেকে অস্ট্রেলিয়া যাওয়ার চেষ্টা করছিলেন রাহাফ; তবে কর্তৃপক্ষ তাকে কুয়েতে অবস্থানরত তার পরিবারের সদস্যদের কাছে ফিরিয়ে দেয়ার চেষ্টা করছিলো।

রয়টার্সকে তিনি বলেন, আমার পরিবার অতি তুচ্ছ অপরাধেও আমাকে মেরে ফেলার হুমকি দেয়। সৌদি আরবে ধর্মত্যাগের শাস্তি মৃত্যুদণ্ড। রাহাফ এখন হোটেল কক্ষ থেকে তার অবস্থা জানিয়ে নিয়মিত টুইট করছেন।

শেষ পর্যন্ত আশ্রয় দেয়ার জন্য কানাডার এ সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছে জাতিসংঘের শরণার্থীবিষয়ক সংস্থা (ইউএনএইচসিআর)। তারা বলছে, কিছুদিন যাবৎ আল-কুনুনের দুর্দশা বিশ্বে সাড়া ফেলেছে।

গত শনিবার আল-কুনুন পরিবারে সঙ্গে কুয়েত যাওয়ার পথে ব্যাংককে পালিয়ে আসেন। ব্যাংকক বিমানবন্দরে আটক হওয়ার পর আল-কুনুন দাবি করেন তার কাছে অস্ট্রেলিয়ার ভিসা রয়েছে এবং তিনি এখান থেকে অস্ট্রেলিয়ার উদ্দেশে কানেকটিং ফ্লাইট ধরবেন। কিন্তু সুবর্ণভূমি বিমানবন্দরে তার পাসপোর্ট একজন সৌদি কূটনীতিক কেড়ে নিয়েছেন।

সৌদি তরুণী রাহাফকে আশ্রয়দানের তথ্য নিশ্চিত করেছেন কানাডার প্রেসিডেন্ট জাস্টিন ট্রুডো। তিনি সাংবাদিকদের বলেন, বিশ্বে মানবাধিকার ও নারী অধিকার রক্ষায় সব সময়ই পাশে দাঁড়ায় কানাডা। জাতিসংঘ তাকে আশ্রয় দেয়ার অনুরোধ করেছিলো; আমরা তা গ্রহণ করেছি।