ফের সড়কে নেমে পোশাক শ্রমিকদের বিক্ষোভ

নিজস্ব প্রতিবেদক, পিটিবিনিউজ.কম
সরকার নির্ধারিত মজুরি কাঠামোতে অসঙ্গতি দূর এবং বেতন বৃদ্ধির দাবিতে গত কয়েকদিনের মতো শনিবারও ঢাকার কয়েকটি স্থানে সড়কে নেমে বিক্ষোভ করেছে পোশক শ্রমিকরা। সরকারের পক্ষ থেকে মজুরি কাঠামোর অসঙ্গতি দূর করার আশ্বাস দেয়া হলেও পোশাক শ্রমিকরা তাতে আশ্বস্ত হতে পারছেন না।

আজ শনিবার সকাল ৯টা থেকে সাভারের আশুলিয়ার বিভিন্ন পোশাক কারখানার শ্রমিকেরা বিক্ষোভ করছেন। তাঁরা দফায় দফায় আবদুল্লাহপুর-বাইপাস সড়ক অবরোধ করছেন। এ নিয়ে পুলিশের সঙ্গে তাঁদের সংঘর্ষ হচ্ছে। ক্ষুব্ধ শ্রমিকেরা ১০টি যানবাহন ভাঙচুর করেছেন। এ পর্যন্ত ৩০টি কারখানার শ্রমিক বিক্ষোভে অংশ নিয়েছেন।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশের পাশাপাশি বিজিবি কাজ শুরু করেছে। এখন পর্যন্ত ৮ প্লাটুন বিজিবি সাভারের বিভিন্ন এলাকায় মোতায়েন করা হয়েছে। আশুলিয়ার এ পর্যন্ত ৩০টি কারখানা ছাড়াও জিরাবো-বাইপাইল সড়কের একটি কারখানার শ্রমিক বের হয়ে বিক্ষোভ করছে। সাভারের একটি কারখানাও শ্রমিক অসন্তোষের খবর পাওয়া গেছে।

আজ শনিবার সকালে ভাষানটেকের তামান্না গার্মেন্টসের শ্রমিকরা সকালে সড়কে নেমে বিক্ষোভ শুরু করে।

ভাষানটেক থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুন্সি সাব্বির আহমেদ বলেন, ‘সকাল থেকে শ্রমিকরা রাস্তা বন্ধ করার চেষ্টা করছে। তাদের বোঝানো হচ্ছে।’

একই সময় শেওড়াপাড়ার কয়েকটি কারখানার শ্রমিরাও সড়কে নেমে আসে। তাদের অবস্থানের কারণে রোকেয়া সরণিতে গাড়ি চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে।

মিরপুর থানার ওসি দাদন ফকির বলেন, শ্রমিকদের শান্ত করতে তারা চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

প্রায় এক সপ্তাহ ধরে এই বিক্ষোভ চলছে। ন্যূনতম মজুরির দাবিতে বৃহস্পতিবারও বিক্ষোভ করেছেন তাঁরা। এর আগে আশুলিয়ার কাঠগড়া, কুটুরিয়া, জামগড়াসহ কয়েকটি এলাকায় রাস্তায় নামেন পোশাকশ্রমিকেরা। এ সময় পুলিশের সঙ্গে শ্রমিকদের সংঘর্ষে দুই পক্ষের ৩০ জনের মতো আহত হন। শ্রমিক বিক্ষোভের কারণে আশুলিয়া এলাকায় অর্ধশত কারখানা বন্ধ ছিল। গত ৯ জানুয়ারি বুধবার শ্রমিক-পুলিশ সংঘর্ষে প্রায় রণক্ষেত্রে পরিণত হয় সাভার।

এদিকে তৈরি পোশাক খাতে শ্রমিকদের নতুন মজুরি কাঠামো অনুযায়ী চলতি জানুয়ারি মাস থেকে নতুন হারে বেতন দেয়া শুরু হয়েছে। শ্রমিকদের অভিযোগ, নতুন কাঠামোয় বেতন প্রত্যাশা অনুযায়ী পাননি তারা। কারো কারো ক্ষেত্রে বেতন আগের চেয়ে কমে গেছে।

প্রাপ্য বেতনের দাবিতে শ্রমিকরা সড়কে নেমে আসার পর নতুন সরকার দ্রুত পদক্ষেপ নিয়ে মজুরি কাঠামো পুনর্মূল্যায়নে একটি কমিটি গঠন করেছে। কমিটি গত বৃহস্পতিবার প্রথম সভাও করেছে। পোশাক শ্রমিকদের জন্য গত বছর ঘোষিত নতুন মজুরি কাঠামোর সাতটি গ্রেডের মধ্যে যে তিনটি গ্রেড নিয়ে আপত্তি এসেছে, সেগুলো পর্যালোচনা করে সমন্বয়ের আশ্বাস দিয়েছেন কমিটির প্রধান শ্রম সচিব আফরোজা খান।

শ্রমিকদের শান্ত হওয়ার আহ্বান জানিয়ে শ্রম প্রতিমন্ত্রী মন্নুজান সুফিয়ান বলেছেন, কোনো শ্রমিকের বেতনই কমবে না।