ঈশ্বরদীতে বিএনপির নির্বাচনী প্রচারে হামলা, প্রার্থীসহ আহত ৮

নিজস্ব প্রতিবেদক, পিটিবিনিউজ.কম
পাবনার ঈশ্বরদীতে বিএনপি প্রার্থী হাবিবুর রহমান হাবিব তার কর্মী-সমর্থকদের নিয়ে নির্বাচনী প্রচার শুরু করার সময় হামলার শিকার হয়েছেন। এতে হাবিবসহ কমপক্ষে আটজন আহত হয়েছেন। এ সময় হাবিবের নির্বাচনী বহরের পাঁচটি মাইক্রোবাসও ভাংচুর করা হয়।

আজ বুধবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে শহরের উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করার দুর্বৃত্তরা হাবিবের ওপর হামলা চালায়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, হাবিব তার কর্মী সমর্থকদের নিয়ে শহরে গণসংযোগের প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। এ সময় ১০-১২ জন মোটরসাইকেল নিয়ে সেখানে অতর্কিত হামলা চালায়। হাবিবের হাত-পাসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে এলাপাতাড়ি কুপিয়ে তাকে ফেলে দেয় দুর্বৃত্তরা। এ সময় হাবিবকে বাঁচাতে এগিয়ে এলে তার কয়েকজন কর্মী সমর্থকরাও ছুরিকাঘাতে আহত হন।

হাবিব ছাড়া আহত অন্যান্যরা হলেন- আহসানুল ইসলাম রিপন, বাচ্চু, সরদার আতাউর রহমান, রিপন, বরকত আলী, বীর হোসেন, রমজান আলী ও ভোলা।

আহত পাবনা জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সহ-সাধারণ সম্পাদক বরকত আলী জানান, নেতা-কর্মীরা রক্তাক্ত হাবিবকে উদ্ধার করে পাশের একটি বাড়িতে নিয়ে যায়। পরে পুলিশ তাকে উদ্ধার করে ঈশ্বরদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়।

ঈশ্বরদী হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. শফিকুল ইসলাম শামিম বলেন, আহত হাবিবের শরীরের বিভিন্ন স্থানে ছুরিকাঘাত করা হয়েছে। আঘাতগুলো গুরুতর হওয়ায় তাকে পাবনা, রাজশাহী অথবা ঢাকায় উন্নত চিকিৎসার জন্য রেফার্ড করা হয়েছে।

ঈশ্বরদী সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জহুরুল হক, ঈশ্বরদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বাহাউদ্দিন ফারুকীসহ পুলিশ সদস্যরা ঘটনাস্থল ও ঈশ্বরদী হাসপাতাল পরিদর্শন করেছেন।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জহুরুল হক বলেন, বিএনপির প্রার্থী হাবিবুর রহমান হাবিবের ওপর কারা হামলা করেছে তা খতিয়ে দেখতে পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগ কাজ করছে। তথ্য প্রমাণ পেলে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এদিকে ঘটনার জন্য ছাত্রলীগ ও যুবলীগকে দায়ী করে বিএনপির প্রার্থী হাবিব অভিযোগ করে করে বলেন, আমাদের শান্তিপূর্ণ গণসংযোগে ছাত্রলীগ ও যুবলীগের নেতা-কর্মীরা হামলা চালিয়েছে।

তবে এ অভিযোগ অস্বীকার করে ঈশ্বরদী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা চেয়ারম্যান মকলেছুর রহমান মিন্টু বলেন, ঈশ্বরদী বিএনপিতে সিরাজ-হাবিব দ্বন্দ্ব দৃশ্যমান। কয়েকদিন আগে উপজেলা ও পৌর বিএনপি যৌথভাবে হাবিবুর রহমান হাবিবের বিরুদ্ধে ঝাটা মিছিল বের করে, তার কুশপুত্তলিকা দাহ এবং তাকে ঈশ্বরদীতে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করে। তাদের দলের লোকেরাই হাবিবের ওপর হামলা করেছে। এর সাথে ছাত্রলীগ-যুবলীগ কোনভাবেই জড়িত নয়।