‘সংঘর্ষের পথ বেছে নিয়েছে বিএনপি-জামাত-ঐক্যফ্রন্ট’

নিজস্ব প্রতিবেদক, পিটিবিনিউজ.কম
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে ‘নীলনকশা’ অনুযায়ী বিএনপি-জামাত-ঐক্যফ্রন্ট সংঘর্ষের পথ বেছে নিয়েছে বলে মন্তব্য করেন এইচ টি ইমাম। তিনি বলেছেন, তারা গণতান্ত্রিক রীতিনীতি অনুযায়ী নির্বাচনের মাঠে না থেকে সন্ত্রাস, নৈরাজ্য ও হামলা পরিচালনা করছে। আওয়ামী লীগসহ সকল গণতান্ত্রিক দলের ও জোটের অফিস ভাঙচুর, মিছিলে হামলা ও অগ্নিসংযোগ করছে। আবার নিজেরাই সহিংসতা সৃষ্টি করে নির্বাচন কমিশনে মিথ্যা অভিযোগ দায়ের করছে। আজ রোববার (২৩ ডিসেম্বর) দুপুরে ধানমণ্ডিতে আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

নির্বাচন ঘিরে বিএনপি-জামাত ও তাদের সহযোগীরা চরমপন্থা বেছে নিতে পারে বলে শঙ্কিত প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম। তিনি বলেন, আমাদের প্রতিপক্ষ শুধু বিএনপিকে বলছি না। তাদের সঙ্গে জামাত, যুদ্ধাপরাধী ও বাংলা ভাইয়ের শিষ্যরা জুটেছে। এক সঙ্গে তারা চরমপন্থা বেছে নিতে পারেন। সেজন্য আমাদের সব সময় সতর্ক থাকতে হবে।

আওয়ামী লীগের ওপর হামলার পরিসংখ্যান তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা বলেন, নির্বাচনী প্রচার শুরু হওয়ার পর থেকে এ পর্যন্ত বিএনপি-জামাতের সন্ত্রাসী বাহিনীর হাতে আওয়ামী লীগের পাঁচজন নেতা-কর্মী নিহত এবং আড়াইশর বেশি নেতা-কর্মী, সমর্থক গুরুতরভাবে আহত হয়েছেন। শত শত নির্বাচনী কার্যালয় ভাঙচুর হয়েছে, আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীদের বাড়ি ও দোকানপাটে হামলা করা হয়েছে।

তিনি নিহত নেতা-কর্মীদের নামও জানান। এরা হলেন- ইউসুফ আল মামুন, মোহাম্মদ হানিফ, ইসহাক হোসেন, জামাল উদ্দিন, তোফাজ্জল হোসেন মণ্ডল।

এইচটি ইমাম বলেন, ২৪টি জায়গায় হামলা ও গুলিবর্ষণ করা হয়েছে, ১১টি গাড়িবহরে হামলা চালানো হয়েছে, দুইটি পুলিশ ভ্যানেও হামলা চালানো হয়েছে। এছাড়া সারা দেশে আওয়ামী লীগের গাড়িবহরে হামলা, পেট্রোলবোমা নিক্ষেপসহ নানা নাশকতা চালানো হচ্ছে। আজকে সকালে আমি আসতে আসতে আমাকে আসাদুজ্জামান নূর সাহেব টেলিফোন করে জানালেন, নীলফামারীতে তার ওখানেও বড় রকমের হামলা হয়েছে। এই ধরনের প্রতিদিনই আমরা প্রতিনিয়ত তথ্য পাচ্ছি।

বিএনপি-জামাত ২০০১ সালের মতো সংখ্যালঘুদের ওপর হামলা করেছে বলেও অভিযোগ করেন প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা। তিনি বলেন, দেশের বিভিন্ন জায়গায় সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মধ্যে ভয়ভীতি সৃষ্টি করা হচ্ছে এবং তাদের ওপর হামলা করা হচ্ছে বলে আমাদের কাছে রিপোর্ট আসছে। বিএনপি-জামাত জোট আবারও ২০০১ সালের স্টাইলে সংখ্যালঘু নির্যাতনের পথ বেছে নিয়েছে। নির্বাচন কমিশন ও প্রশাসনের কাছে এই ধরনের হামলা ও সহিংসতায় জড়িত বিএনপি-জামাতের সন্ত্রাসীদের অবিলম্বে গ্রেপ্তার করে নির্বাচনে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নিশ্চিত করার দাবি জানাচ্ছি।

সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের উপ-প্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন, উপ-দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া প্রমুখ।