এজেন্ট নিয়ে চিন্তায় বিএনপি

নিজস্ব প্রতিবেদক, পিটিবিনিউজ.কম
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রচার-প্রচারণা শুরু হয়েছে। এর মধ্যে দেশের বিভিন্ন স্থানে যেভাবে বিএনপির নেতা-কর্মীদের ধর-পাকড় করা হচ্ছে, তাতে নির্বাচনের সময় কোনো এজেন্ট পাওয়া যাবে কি-না তা নিয়ে চিন্তায় পরেছে বিএনপি। আজ বুধবার (১২ ডিসেম্বর) দুপুরে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে সিইসি কে এম নূরুল হুদার সঙ্গে সেলিমা রহমানের নেতৃত্বে পাঁচ সদস্যের প্রতিনিধি দল সাক্ষাৎ করেন। পরে সাংবাদিকদের কাছে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সেলিমা রহমান এসব কথা বলেন।

ধর-পাকড়ের এমন অবস্থায় নির্বাচনের সময় কোনো এজেন্ট পাওয়া যাবে কি-না তা নিয়ে চিন্তায় থাকার কথা জানালেন সেলিমা রহমান। তিনি বলেন, পুলিশের ভয়ে অনেকে পলাতক আছেন। বিষয়গুলো আমরা কমিশনকে জানালাম। তফসিলের পর কাউকে গ্রেপ্তার করা হবে না বললেও প্রতিনিয়ত নেতা-কর্মীদের গ্রেপ্তার করা হচ্ছে। অজ্ঞাতনামা আসামি হিসেবে গ্রেপ্তারের বিষয়ে জানতে চাইলে পুলিশ বলছে, তাদের নামে আগে থেকেই মামলা ছিলো।’ এর সঙ্গে তিনি যোগ করেন, সরকার চাইছে আমরা যেন নির্বাচনে প্রচারণা চালাতে না পারি, নির্বাচন যেন না করতে পারি। তারা যেন একতরফাভাবে নির্বাচন করতে পারে। সে কারণে এখন ভয়ভীতি, হামলা-মামলাসহ বিভিন্নভাবে আমাদের হয়রানি করছে। এই ঘটনাগুলো জানাতে আজ আমরা এসেছি।

সেলিমা রহমান বলেন, আমরা মনে করি তিনি (সিইসি) অসহায়। তিনি বিব্রত বোধ করছেন, এটা সত্যি। কারণ, তিনি কিছু করতে পারছেন না। তবুও আমরা আশা রাখি, সিইসি যেহেতু এবার একটি সুযোগ পেয়েছেন তিনি সঠিক পদক্ষেপ নেবেন। তাহলে কিন্তু আমরা এই নির্বাচনকে গ্রহণযোগ্য নির্বাচন হিসেবে প্রমাণ করতে পারবো।

বিএনপির এই নেতা বলেন, গত ১০ ডিসেম্বর থেকে প্রচারণা শুরু হয়েছে। প্রচারণার পরপরই বিএনপির মহাসচিবের গাড়িবহরে হামলা হয়েছে। ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদের প্রচারণায় বারবার হামলা করা হচ্ছে। মঈন খানের এলাকায় হামলা চালানো হচ্ছে। পুলিশের সহায়তায় আওয়ামী ও যুবলীগ মিলে এই হামলা করছে বলে তিনি অভিযোগ করেন। তিনি আরো বলেন, যারা জামিনে আছেন তাদেরও গ্রেপ্তার করা হচ্ছে। যাদের গ্রেপ্তার করা হচ্ছে, তাদের জামিন দেয়া হচ্ছে না। নাটোরে জামিনে থাকা সত্ত্বেও বিএনপি নেতা রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলুকে আটক করা হয়েছে। যেসব নেতা-কর্মীর নামে মামলা নেই, মামলার অজ্ঞাতনামা আসামি হিসেবে তাদের গ্রেপ্তার দেখানো হচ্ছে।