লালমনিরহাটে আ.লীগ প্রার্থী মোতাহার হোসেনের ২২ নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি

ফাইল ছবি।

আসাদুজ্জামান সাজু, লালমনিরহাট প্রতিনিধি, পিটিবিনিউজ.কম
লালমনিরহাট-১ (হাতীবান্ধা-পাটগ্রাম) আসনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা মোতাহার হোসেন সাংসদ আগামী পাঁচ বছরের উন্নয়ন কর্ম পরিকল্পনা ঘোষণা করেছেন। তিনি তার কর্ম পরিকল্পনায় দাবি করেছেন এলাকার উন্নয়নে ইতোমধ্যে ৭৫-৮০ ভাগ কার্যক্রম সম্পন্ন করেছেন। আগামীতে আবার নির্বাচিত হলে বাকি ২০-২৫ ভাগ উন্নয়ন মূলক কাজ সম্পন্ন করবেন। সে কারণে তিনি আর একবার জনসমর্থন চেয়েছেন। সাবেক প্রতিমন্ত্রী ও সাবেক সেনা কর্মকর্তা মোতাহার হোসেন তার কর্ম পরিকল্পনায় ২২টি নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।

তার নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি গুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো- তিস্তা নদীর বাম তীরে বাঁধ নির্মাণ, ধরলা নদীর ভাঙ্গন রোধ, লালমনিরহাট-বুড়িমারী রাস্তা চার লেনে উন্নীতকরণ, বুড়িমারী-ঢাকা তিনবিঘা এক্সপ্রেস ট্রেন চালু করণ, শত ভাগ বিদ্যুৎ সরবরাহ নিশ্চিত করণ, লালমনিরহাট বিমানবন্দর চালু, হাতীবান্ধা ও পাটগ্রাম উপজেলায় শিশু পার্কসহ নওদাবাস শালবনকে ইকো-পার্কে উন্নীত করণ, হাতীবান্ধায় ভুট্টা গবেষনা ও টেক্সটাইল ইনস্টিটিউট স্থাপন, সানিয়াজান ও ধরলা নদীতে রাবার ড্যাম চালু কারণ, হাতীবান্ধায় স্টেডিয়াম ও বড়খাতায় বিদ্যুৎ সাব-স্টেশন নির্মাণ, ধরলা নদীর বাশকাটা-মোহাম্মদপুরে ও কুচলিবাড়ী গোলডাঙ্গায় সানিয়াজান নদীতে সেতু নির্মাণ, লালমনিরহাট সদরে পলি টেকনিক্যাল ইনস্টিটিউট ও নার্সেস ট্রেনিং কলেজ চালু, লালমনিরহাটে শিল্প কারখানা স্থাপনসহ হাতীবান্ধা পৌরসভা বাস্তবায়ন।

আওয়ামী লীগ প্রার্থী সাবেক প্রতিমন্ত্রী মোতাহার হোসেন বলেন, আমার নির্বাচনী এলাকা একটি মঙ্গা ও বন্যা কবলিত। এ এলাকার মানুষ অধিকাংশই শ্রমিক ও কৃষির ওপর নির্ভরশীল। নেতৃত্বের কারণে এলাকাটি দীর্ঘদিন ধরে উন্নয়ন বঞ্চিত ছিলো। আমি পর পর দুই বার উপজেলা চেয়ারম্যান ও টানা তিন বার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে এলাকার উন্নয়নে কাজ করছি। শেখ হাসিনার দক্ষ নেতৃত্বের কারনে আমার নির্বাচনী এলাকাসহ গোটা জেলার উন্নয়নের ৭৫-৮০ ভাগ কাজ সম্পন্ন করেছি। আমার নির্বাচনী এলাকার জনগন আমাকে পূনরায় সুযোগ দিলে বাকি অসমাপ্ত উন্নয়ন মূলক কাজগুলো শেষ করে এ জেলাকে মডেল জেলা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করবো।