শপথ নিলেন আপিল বিভাগের নতুন তিন বিচারপতি

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক, পিটিবিনিউজ.কম
সদ্য আপিল বিভাগে নিয়োগ পাওয়া তিন বিচারপতি শপথ গ্রহণ করেছেন। আজ মঙ্গলবার (৯ অক্টোবর) সকাল সাড়ে ১০টায় সুপ্রিমকোর্টের জাজেস লাউঞ্জে তাদের শপথ বাক্য পাঠ করান প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন। এই অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন রেজিস্ট্রার জেনারেল ড. মো. জাকির হোসেন। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন উভয় বিভাগের বিচারপতিরা। এই তিনজন বিচারপতি নিয়োগের ফলে বর্তমানে আপিল বিভাগে বিচারপতির সংখ্যা সাতে উন্নীত হলো।

তিন বিচারপতি হলেন- বিচারপতি জিনাত আরা, বিচারপতি আবু বকর সিদ্দিকী ও বিচারপতি মো. নূরুজ্জামান।

এর আগে সোমবার (৮ অক্টোবর) হাইকোর্ট বিভাগের তিন বিচারপতিকে আপিল বিভাগে নিয়োগ দেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ।
সংবিধানের ৯৫ (১) ধারা অনুযায়ী আপিল বিভাগের নতুন বিচারপতি হিসেবে তাদের নিয়োগ দেন রাষ্ট্রপতি। নিয়োগ দেয়ার পর সোমবার প্রজ্ঞাপন জারি করে আইন মন্ত্রণালয়।

বিচারপতি জিনাত আরা বিএসসি ও আইন পাস করে ১৯৭৮ সালে মুন্সেফ হিসেবে বিচার বিভাগে দায়িত্ব পালন শুরু করেন। ১৯৯৫ সালে পদন্নতি পেয়ে জেলা ও দায়রা জজ হন। ২০০৩ সালের ২৭ এপ্রিল হাইকোর্টে অস্থায়ী বিচারক হিসাবে নিয়োগ পাওয়ার দুই বছর পর স্থায়ী হন তিনি। বিচারপতি জিনাত আরার আগে বাংলাদেশের প্রথম নারী বিচারপতি নাজমুন আরা সুলতানা ২০১১ সালের ফেব্রুয়ারি থেকে ২০১৭ সালের জুলাই পর্যন্ত আপিল বিভাগে দায়িত্ব পালন করেন।

১৯৫৩ সালের ১৫ মার্চ জন্মগ্রহণ করা বিচারপতি জিনাত আরা অবসরের বয়সসীমা অনুযায়ী আরো দুই বছর সর্বোচ্চ আদালতের বিচারক হিসেবে দায়িত্ব পালন করতে পারবেন।

নবনিযুক্ত বিচারপতি আবু বকর সিদ্দিকী এবং বিচারপতি মো. নূরুজ্জামান ২০০৯ সালের ৩০ জুন একইসঙ্গে হাইকোর্টে অস্থায়ী বিচারক হিসাবে নিয়োগ পান এবং দুই বছর পর হাইকোর্টে স্থায়ী হন।

বিচারপতি আবু বকর সিদ্দিকী ১৯৫৪ সালের ২৯ জুলাই জন্মগ্রহণ করেন। তার ছোট ভাই হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী বর্তমানে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের বিচারপতি।

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আইনের ডিগ্রি নেওয়ার পর ১৯৭৯ সালে কুষ্টিয়া বারে আইনজীবী হিসাবে তালিকাভুক্ত হন আবু বকর সিদ্দিকী। পরের বছর মুন্সেফ হিসেবে বিচার বিভাগের চাকরিতে যোগ দেন এবং ১৯৯৭ সালে জেলা ও দায়রা জজ হন। এর এক যুগ পর তিনি হাইকোর্টের বিচারপতি হন।

বিচারপতি মো. নূরুজ্জামানের জন্ম ১৯৫৬ সালে। মাস্টার্স ও এলএলবি ডিগ্রি নেওয়ার পর আইন পেশায় যোগ দেন মো. নূরুজ্জামান। ১৯৮৩ সালে জেলা আদালত এবং ১৯৮৭ সালে হাইকোর্ট বিভাগের আইনজীবী হিসাবে তালিকাভুক্ত হন। এরপর ২০০৯ সালে তিনি হাইকোর্টের বিচারপতি হিসেবে যোগ দেন।

বর্তমানে আপিল বিভাগে প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনসহ চারজন বিচারপতি রয়েছেন। অপর বিচারপতিরা হলেন- বিচারপতি ইমান আলী, বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী ও বিচারপতি মির্জা হোসেইন হায়দার।

এর আগে সর্বশেষ ২০১৬ সালের ৭ ফেব্রুয়ারি তিনজন বিচারপতি নিয়োগ দেয়া হয়েছিলো। তারা হলেন- হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি মির্জা হোসেইন হায়দার, বিচারপতি মো. নিজামুল হক ও বিচারপতি মোহাম্মদ বজলুর রহমান ছানা। এদের মধ্যে বিচারপতি নিজামুল হক অবসরে গেছেন এবং বিচারপতি বজলুর রহমান চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*


This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.