ভারতের বিপক্ষে জয়ের সমান টাই আফগানিস্তানের

স্পোর্টস ডেস্ক, পিটিবিনিউজ.কম
এশিয়া কাপের গ্রুপ পর্বে শ্রীলঙ্কা বাংলাদেশকে উড়িয়ে দিয়ে বিরাট সম্ভবনা নিয়ে সুপার ফোরে উঠেছিলো আফগানিস্তান। সুপার ফোরে প্রথম দুই ম্যচে শেষ ওভারে এসে হেরেছে আইসিসির টেস্ট পরিবারের নবাগত সদস্য দেশটি। আর গতকাল ভারতের বিপক্ষে জয়-পরাজয়ের মাঝখানে দাঁড়িয়ে থেমে গেলো রশিদ-নবিরা।

শেষ ওভারে ভারত-আফগানিস্তানের রোমাঞ্চকর লড়াই হয়েছে ‘টাই’। এশিয়া কাপের সুপার ফোরের ম্যাচে আহমেদ শাহজাদের সেঞ্চুরি আর মোহাম্মদ নবির ফিফটিতে ৮ উইকেটে ২৫২ রান করে আফগানিস্তান। এক বল বাকি থাকতে একই স্কোরে গুটিয়ে যায় ভারতের ইনিংস।

দুবাই ইন্টারন্যাশনাল স্টেডিয়ামে মঙ্গলবার টস জিতে ব্যাট করতে নেমে দুই প্রান্তে দুই রকম সূচনা পায় আফগানিস্তান। এক দিকে রানের জন্য সংগ্রাম করছিলেন ব্যাটসম্যানরা, অন্য প্রান্তে ঝড় তুলেছিলেন শাহজাদ। সবচেয়ে কম দলীয় রানে সেঞ্চুরির রেকর্ড স্পর্শ করা উইকেট কিপার ব্যাটসম্যান ১১৬ বলে ১১ চার ও ৭ ছক্কায় ফিরেন ১২৪ রান করে। তার বিদায়ের পর দলকে প্রায় একাই টানেন নবি। ৫৬ বলে ৩ চার ও ৪ ছক্কায় ৬৪ রান করে ফিরেন এই অফ স্পিনিং অলরাউন্ডার।

এদিকে ভারতের আগেই ফাইনাল নিশ্চিত হওয়ায় নিয়মিত একাদশের পাঁচ জনকে বিশ্রাম দেয় দলটি। দুই পেসার ভুবনেশ্বর কুমার, জাসপ্রিত বুমরাহ ও রিস্ট স্পিনার যুজবেন্দ্র চেহেলের সঙ্গে খেলেননি আগের ম্যাচে সেঞ্চুরি পাওয়া দুই ওপেনার শিখর ধাওয়ান ও রোহিত শর্মা।

লোকেশ রাহুল ও অম্বাতি রাইডুর ব্যাটে শতরানের জুটিতে শুরুটা ভালো হয় ভারতের। ৪৯ বলে চারটি করে ছক্কা-চারে ৫৭ রান করা রাইডুকে ফিরিয়ে ভারতের প্রতিরোধ ভাঙেন নবি। এরপর জুটির জন্য সংগ্রাম করতে হয়েছে ভারতীয়দের। টুর্নামেন্টে প্রথমবারের মতো খেলা ওপেনার রাহুল ৬৬ বলে ফিরেন ৬০ রান করে। তবে দলের একমাত্র রিভিউ নষ্ট করে যান তিনি। পরে যার মাশুল দিতে হয়েছে।

আম্পায়ারের ভুল সিদ্ধান্তে ফিরেন রোহিতের অনুপস্থিতিতে এই ম্যাচে দলকে নেতৃত্ব দেয়া মহেন্দ্র সিং ধোনি। সুযোগ কাজে লাগাতে পারেননি মনিশ পান্ডে। দুর্ভাগ্যজনক রান আউট হয়ে ফিরেন কেদার যাদব। আম্পায়ারের আরেকটি ভুল সিদ্ধান্তে এলবিডব্লিউ হয়ে ফিরেন ভারতের আশা বাঁচিয়ে রাখা দিনেশ কার্তিক। বিনা উইকেটে ১১০ থেকে ২০৫ রানে যেতে প্রথম ছয় ব্যাটসম্যানকে হারিয়ে ফেলে ভারত।

এরপর শুরু হয় জাদেজার লড়াই। দায়িত্বশীল ব্যাটিংয়ে দলকে নিয়ে যান জয়ের দ্বারপ্রান্তে। রশিদের করা শেষ ওভারে জয়ের জন্য প্রয়োজন ছিলো ৭ রান। শেষ ২ বলে ১। সব ফিল্ডার ছিলেন ৩০ গজে, বাইরে ফিল্ডার ছিলেন কেবল মিডউইকেট সীমানায়। রশিদকে উড়ানোর চেষ্টায় সেই ফিল্ডারকে খুঁজে পান জাদেজা। আফগানরা করে জয়সম ‘টাই’।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*


This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.