রাষ্ট্রায়ত্ত শিল্পের শ্রমিকদের মজুরি শতভাগ বাড়লো

নিজস্ব প্রতিবেদক, পিটিবিনিউজ.কম
রাষ্ট্রায়ত্ত শিল্প কারখানার শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি শতভাগ বাড়িয়ে ৮ হাজার ৩০০ টাকা করার প্রস্তাব জাতীয় সংসদে পাস হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার বিলটি সংসদে উঠলে তা কণ্ঠভোটে পাস হয়।

জাতীয় মজুরি ও উৎপাদনশীলতা কমিশনের সুপারিশের আলোকে মজুরি বাড়াতে শ্রম প্রতিমন্ত্রী মুজিবুল হক চুন্নু ‘পণ্য উৎপাদনশীল রাষ্ট্রায়ত্ত শিল্প প্রতিষ্ঠান শ্রমিক (চাকুরীর শর্তাবলী) বিল-২০১৮’ সংসদে পাসের প্রস্তাব করেন।

গত জুলাই মাসে বিলটি মন্ত্রিসভার অনুমোদনের পর ১০ সেপ্টেম্বর তা সংসদে তোলা হয়েছিলো। তখন বিলটি পরীক্ষা করে প্রতিবেদন দেয়ার জন্য শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটিতে পাঠানো হয়েছিলো।

নতুন বেতন কাঠামো অনুযায়ী, রাষ্ট্রায়ত্ত শিল্প প্রতিষ্ঠানের শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি হবে ৮ হাজার ৩০০ টাকা এবং সর্বোচ্চ মজুরি হবে ১১ হাজার ২০০ টাকা। অর্থাৎ উভয় ক্ষেত্রে মজুরি শতভাগ বাড়লো। আগে এই শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি ৪ হাজার ১৫০ টাকা এবং সর্বোচ্চ মজুরি ৫ হাজার ৬০০ টাকা ছিলো।

২০১৫ সালের ১ জুলাই থেকে নতুন মজুরি এবং ২০১৬ সালের ১ জুলাই থেকে ভাতা কার্যকর ধরা হবে বলে বিলে উল্লেখ করা হয়েছে। বাংলাদেশ চিনি ও খাদ্য শিল্প কর্পোরেশন, বাংলাদেশ পাটকল কর্পোরেশন, বাংলাদেশ টেক্সটাইল মিলস কর্পোরেশন, বাংলাদেশ ইস্পাত ও প্রকৌশল কর্পোরেশন, বাংলাদেশ কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ কর্পোরেশন এবং বাংলাদেশ বনশিল্প উন্নয়ন কর্পোরেশনে কর্মরত শ্রমিকরা এই আইনের আওতায় পড়েন।

কয়েক বছরের মূল্যস্ফীতিতে জীবনযাত্রার ব্যয় বাড়ায় সরকারি খাতের শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি বাড়িয়ে ১৬ হাজার টাকা করার দাবি জানিয়ে আসছিলো শ্রমিক সংগঠনগুলো। সম্প্রতি তৈরি পোশাক শিল্পের শ্রমিকদের নতুন মজুরি কাঠামোর ঘোষণা দেয় সরকার। তাতে এই শিল্পের শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি ৫১ শতাংশ বেড়ে আট হাজার টাকা দাঁড়িয়েছে। তবে অধিকাংশ শ্রমিক নেতা তা প্রত্যাখ্যান করেছেন।

২০১৫ সালে সরকারি চাকুরেদের বেতন বাড়ানোর পর রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠানের শ্রমিকদের মজুরি বাড়াতে সাবেক সচিব নজরুল ইসলাম খানকে চেয়ারম্যান করে ‘জাতীয় মজুরি ও উৎপাদনশীলতা কমিশন-২০১৫’ গঠন করা হয়। এই কমিশন গত বছরের ৪ জুলাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে সুপারিশসহ প্রতিবেদন জমা দেয়।

কমিশন শ্রমিকদের মজুরি ন্যূনতম ৮ হাজার ৩০০ টাকা এবং সর্বোচ্চ ১১ হাজার ৬০০ টাকা নির্ধারণের সুপারিশ করেছিলো।

সর্বশেষ ‘জাতীয় মজুরি ও উৎপাদনশীলতা কমিশন ২০১০’ এ রাষ্ট্রায়ত্ত শিল্পের শ্রমিকদের মজুরি প্রায় ৭০ শতাংশ বাড়িয়ে সর্বোচ্চ মজুরি ৫ হাজার ৬০০ টাকা এবং সর্বনিম্ন ৪ হাজার ১৫০ টাকা নির্ধারণ করা হয়।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*


This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.