দলীয় সরকারের অধীনেই সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব: টিআইবি

52নিজস্ব প্রতিবেদক, পিটিবিনিউজ.কম
দলীয় সরকারের অধীনেই সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন সম্ভব বলে মনে করে দুর্নীতিবিরোধী সংস্থা ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)। এই সংস্থাটির নির্বাহী পরিচালক ইফতেখারুজ্জামান বলেছেন, দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন নিয়ে রাজনৈতিক দল ও সব অংশীজনের মধ্যে আস্থাহীনতা রয়েছে। কিন্তু তার মানে এই নয় যে ‘নির্বাচন করা অসম্ভব’। নির্বাচন কমিশন, রাজনৈতিক দল ও অংশীজনেরা সবাই যার যার ভূমিকা পালন করলে তা সম্ভব। আজ সোমবার (১৭ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর ধানমন্ডিতে মাইডাস সেন্টারে টিআইবির কার্যালয়ে আয়োজিত ‘রাজনৈতিক দলের নির্বাচনী ইশতেহার: সুশাসন ও শুদ্ধাচার’ শীর্ষক এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

ইফতেখারুজ্জামান বলেন, বর্তমান সরকারের আমলে যত নির্বাচন হয়েছে তার সবগুলোই যে বিতর্কিত ছিলো তা বলা যাবে না। যে কয়েকটা নির্বাচন ভাল হয়েছে রাজনৈতিক দলগুলো চেয়েছে বলে তা সম্ভব হয়েছে। তিনি বলেন, নির্দলীয় সরকারের বিষয়ে বর্তমানে সাংবিধানিক যে অবস্থান রয়েছে সেটা একটি বাস্তবতা। আবার দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন নিয়ে আস্থাহীনতার বিষয়টিও একটি বাস্তবতা।

ইফতেখারুজ্জামান বলেন, নির্বাচন শুধু নির্বাচন কমিশন করে না। এতে বড় ভূমিকা রাজনৈতিক দলগুলোর। তাই রাজনৈতিক দলগুলোর সদিচ্ছাই সুষ্ঠু নির্বাচনের বড় নিয়ামক।

রাজনৈতিক দলগুলোর নির্বাচনী ইশতেহারে করা অঙ্গীকার প্রসঙ্গে টিআইবির নির্বাহী পরিচালক বলেন, অঙ্গীকারের সঙ্গে বাস্তবায়নের ফারাক অনেক। তারপরও বিশ্লেষণে কিছু ইতিবাচক বিষয় পাওয়া গেছে। গত ১০ বছরে সুশাসন ও শুদ্ধাচার সম্পর্কিত নীতি কাঠামো অনেক সুদৃঢ় হয়েছে। কিন্তু যেসব নীতি ও কৌশল প্রণয়ণ করা হয়েছে সেটাতেও ঘাটতি আছে। তিনি বলেন, গণতান্ত্রিক ব্যবস্থার সহায়ক ও দুর্নীতি প্রতিরোধে অনেক সংস্কার হলেও অনেক সংস্কার কাগজেই রয়ে গেছে। এ প্রসঙ্গে তিনি তথ্য অধিকার আইনের প্রসঙ্গ তুলে ধরে বলেন, এটি একটি যুগান্তকারী আইন হলেও এর পরিপন্থী অনেক আইন করা হচ্ছে।

এর আগে রাজনৈতিক দলগুলোর নির্বাচনী ইশতেহার ও শুদ্ধাচার সংক্রান্ত কার্যপত্র তুলে ধরেন টিআইবির গবেষক দল। তাতে স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে রাজনৈতিক দলগুলের নির্বাচনী ইশতেহারের নানা দিক তুলে ধরা হয়। পাশপাশি ওইসব ইশতেহারের বাস্তবায়নের বিষয়টিও তুলে ধরা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন টিআইবির উপদেষ্টা ও নির্বাহী ব্যবস্থাপক ড. সুমাইয়া খায়ের, রিসার্চ অ্যান্ড পলিসি বিভাগের পরিচালক মোহাম্মদ রফিকুল হাসানসহ উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

এদিকে, গতকাল রোববার জাতীয় প্রেসক্লাবে সুশাসনের জন্য নাগরিকের—সুজন এক অনুষ্ঠানে বিশিষ্টজনেরা বলেছেন, দলীয় সরকারের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব না। আর বর্তমান ক্ষমতাসীনেরা ছাড়া বিরোধী দলগুলোও বলছে দলীয় সরকারের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব না। এজন্য বিএনপি, নবগঠিত জোট জাতীয় ঐক্য, বাম জোটগুলো নিরপেক্ষ সরকারের দাবিতে কর্মসূচিও পালন করছে।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*


This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.