পৃথিবীর নিরাপত্তার জন্য নবায়নযোগ্য জ্বালানি অপরিহার্য: রাষ্ট্রপতি

নিউজ ডেস্ক, পিটিবিনিউজ.কম
বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বলেছেন, পৃথিবীর নিরাপত্তার জন্য নবায়নযোগ্য জ্বালানি অপরিহার্য। তাই এই জ্বালানির চাহিদা মেটাতে সমন্বিত নীতিনির্ধারণ ও অর্থায়নে বিশ্ব সম্প্রদায়কে এগিয়ে আসতে হবে। আজ রোববার (১১ মার্চ) ভারতের নয়া দিল্লিতে বিশ্বের ১২১টি দেশের সৌর বিদ্যুৎ সহযোগিতা বিষয়ক জোট ইন্টারন্যাশনাল সোলার অ্যালায়েন্সের (আইএসএ) ‘ফাউন্ডিং কনফারেন্সে’ তিনি এ কথা বলেন। এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয় দিল্লির রাষ্ট্রপতি ভবন কালচারাল সেন্টারে (আরবিসিসি)

মো. আবদুল হামিদ বলেন, আমরা বিশ্বাসি করি, উন্নয়নশীল দেশগুলোর জন্য নবায়নযোগ্য জ্বালনির উন্নয়ন খুবই জরুরি। নবায়নযোগ্য জ্বালানিতে বিনিয়োগ শুধুমাত্র আন্তর্জাতিক বিষয় নয়, বরং প্রান্তিক মানুষের জ্বালানি সুবিধা নিশ্চিতের জন্য এই উদ্যোগ। পৃথিবীর নিরাপত্তার জন্যও এটি অপরিহার্য। তিনি বলেন, নবায়নযোগ্য জ্বালানির চাহিদা মোটানোর জন্য সমন্বিত নীতি এবং বড় ধরনের অর্থায়ন প্রয়োজন। এক্ষেত্রে বিশ্ব সম্প্রদায়কে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে হবে।

জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে বাংলাদেশের ক্ষতির দিক তুলে ধরে সম্মেলনে রাষ্ট্রপতি বলেন, বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধির বিরূপ প্রভাব দেখা দিচ্ছে। জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ অন্যতম। বাংলাদেশ বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধিতে দায়ী না হলেও ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। এই সমস্যার সমাধানে বাংলাদেশ সর্বোচ্চ প্রয়াস চালাচ্ছে।

বাংলাদেশ সরকার ২০২১ সালের মধ্যে মোট উৎপাদিত বিদ্যুতের ১০ শতাংশ অর্থাৎ প্রায় দুই হাজার মেগা ওয়াট বিদ্যুৎ নবায়নযোগ্য জ্বালানি থেকে উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ঠিক করেছে। এখন পর্যন্ত বাংলাদেশে সৌরশক্তি থেকে উৎপাদিত হয় ২৪০ মেগাওয়াট বিদ্যুত। এছাড়া সরকার সৌরশক্তি থেকে ‘ইউটিলিটি স্কেলে’ ৫০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য জাতীয় গ্রিডে সংযুক্ত বৃহৎ আকারের সৌরবিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপনের প্রকল্প হাতে নিয়েছে।

সার্বিক উন্নয়নের জন্য বিদ্যমান জ্বালানিশক্তি যথেষ্ট নয় উল্লেখ করে মো. আবদুল হামিদ বলেন, এ কারণে উন্নয়নশীল দেশগুলো দ্রুত নবায়নযোগ্য জ্বালানির ব্যবহার বৃদ্ধি করতে যাচ্ছে। এর প্রযুক্তিগত ব্যয়ও দিন দিন কমে আসছে। ফলে বিশ্বব্যাপী নবায়নযোগ্য জ্বালানির ব্যবহার বৃদ্ধি পেয়েছে।

নবায়নযোগ্য জ্বালানির ব্যবহার বাড়াতে বাংলাদেশের বিভিন্ন উদ্যোগের কথা সম্মেলনে তুলে ধরেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। এই সম্মেলনের মাধ্যমে সৌর বিদ্যুতের ব্যবহার, গবেষণা ও উন্নয়ন, দক্ষতা বৃদ্ধিসহ বিভিন্ন বিষয়ে আইএসএ’র সদস্য দেশগুলোর মধ্যে সহযোগিতা বৃদ্ধি পাবে বলেও আশা প্রকাশ করেন তিনি।

মো. আবদুল হামিদ বলেন, সকলের জন্য সাশ্রয়ী, নির্ভরযোগ্য, টেকসই ও আধুনিক জ্বালানি নিশ্চিত করার জন্য পরস্পরকে সহযোগিতা করতে বাংলাদেশ প্রস্তুত। নবায়নযোগ্য জ্বালানি খাতের নতুন দ্বার উন্মোচনে আইএসএ সদস্য দেশগুলোর সহযোগিতা প্রত্যাশা করছি।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল মাক্রোঁর যৌথ সভাপতিত্বে এই সম্মেলনের সূচনা পর্বে দুই-কো চেয়ার এবং ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ বক্তব্য দেন।

বাংলাদেশ ছাড়াও এ সম্মেলনে অংশ নেন ভারত, শ্রীলঙ্কা ও ফ্রান্সসহ ২৩টি দেশের রাষ্ট্রপ্রধান/ সরকারপ্রধান এবং ৯টি দেশের মন্ত্রী পর্যায়ের প্রতিনিধিরা।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*


This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.