১৬ নৌশ্রমিকের মুক্তিসহ ২১ দফা দাবি পূরণে আল্টিমেটাম

নিজস্ব প্রতিবেদক, পিটিবিনিউজ.কম। ওয়েবসাইট: www.ptbnewsbd.com

0
সমাবেশের পর ১২ জুলাই দুপুরে রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে থেকে একটি মিছিল নিয়ে ২১ দফা দাবি পূরণে স্বারকলিপি দিতে প্রধামনমন্ত্রীর কার্যালয় অভিমুখে যাত্রা করে বাংলাদেশ নৌযান শ্রমিক ফেডারেশন। ছবি: নাছির উদ্দিন, পিটিবিনিউজ.কম। ওয়েবসাইট: www.ptbnewsbd.com

কারাগারে আটক ১৬ নৌশ্রমিকের মুক্তিসহ ২১ দফা দাবি পূরণে সরকারকে আল্টিমেটাম দিয়েছে বাংলাদেশ নৌযান শ্রমিক ফেডারেশন। সংগঠনটির নেতৃবৃন্দ বলেছেন, দাবি আদায়ে আজ প্রধানমন্ত্রীর কাছে স্মারক লিপি দিতে যাচ্ছি। যদি তাঁর নির্দেশে ২১ দফার দাবি পূরণ না হয়, তাহলে ২৩ জুলাই রাত ১২টার পর থেকে লাগাতার নৌ ধর্মঘট শুরু হবে। বুধবার (১২ জুলাই) দুপুরে ২১ দফা দাবি জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ে স্মারকলিপি দিতে যাওয়ার আগে রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এক সমাবেশে নৌযান শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি মো. শাহ আলম ভূঁইয়া এসব কথা বলেন।

সমাবেশে নৌযান শ্রমিক ফেডারেশনের নেতৃবৃন্দ বলেন, গত ২২ মার্চ ভারতের হলদিয়া কোর্টে জাহাজ নিয়ে যাওয়ার পর কয়েকজন শ্রমিক নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রী কেনার জন্য স্থলভাগে গেলে ভারতীয় কর্তৃপক্ষ আটজনকে আটক করে। বর্তমানে তাঁরা ভারতের কারাগারে রয়েছেন। এছাড়া, কোকো লঞ্চ দুর্ঘটনায় তাদের আরো আট শ্রমিক দেশের কারাগারে রয়েছেন।

নৌযান শ্রমিকদের অন্যান্য দাবির মধ্যে রয়েছে- প্রত্যেক নৌযান শ্রমিককে মালিকপক্ষ থেকে নিয়োগপত্র, পরিচয়পত্র ও সার্ভিসবুক দেয়ার ব্যবস্থা নিশ্চিতকরণ, শ্রমিকদের সামাজিক নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণ, সামুদ্রিক মৎস্য শিকারী জাহাজ শ্রমিকদের গ্রেডেশন বা পদ বিন্যাস নিশ্চিতকরণ, ফিসারিজ কনভেনশন অনুসমর্থনের এবং ফিশিং ট্রলার শ্রমিকদের কল্যাণ তহবিল গঠনের ব্যবস্থা করা। এছাড়া, ভারতগামী জাহাজের (ইনল্যান্ড) মাস্টার, ড্রাইভার ও নাবিকদের উপযুক্ত পরিচয়পত্র প্রদান করার মাধ্যমে ভারতে অবস্থানকালে নদী তীরবর্তী বন্দর বা শহরে যাওয়ার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাকরণ, কথায় কথায় সনদ স্থগিতকরণের প্রবণতা বন্ধ, অন্যায়ভাবে বন্ধ রাখা তেলবাহী জাহাজ দ্রত চলাচলে উপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণ এবং নদী ও সমুদ্রপথে চাঁদাবাজি, সন্ত্রাস, জলদস্যুতা বন্ধে পর্যাপ্ত ব্যবস্থা নেওয়া।

এর আগে ২১ দফা দাবিতে বেলা ১১টা থেকে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনের রাস্তায় নৌযান শ্রমিকরা জড়ো হতে শুরু করে। এরপর সেখানে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশের পর দুপুর ১২টার দিকে প্রেসক্লাবের সামনে থেকে একটি মিছিল নিয়ে স্বারকলিপি দিতে প্রধামনমন্ত্রীর কার্যালয় অভিমুখে যাত্রা শুরু করলে কদম ফোয়ারার সামনে তাদের বাঁধা দেয় পুলিশ। পরে মিছিলটি কদম ফোয়ারা হয়ে পল্টন গিয়ে শেষ হয়।

মিছিলে বাঁধা দিলেও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী নৌযান শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি শাহ আলম ভূঁইয়া, সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী আশিকুল আলম, সাংগঠনিক সম্পাদক আফসার হোসেন চৌধুরী ও সদস্য আব্দুর রহিম মাস্টার সমন্বয়ে একটি দলকে স্মারকলিপি নিয়ে যেতে দেয়।

মিছিলে বাঁধার বিষয়ে রমনা বিভাগের পুলিমের অতিরিক্ত উপ-কমিশার নাবিদ কামাল বলেন, এই মিছিলটি নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে গেলে পথে জনদুর্ভোগ হবে। বিষয়টি নৌযান নেতাদের বলায় তাঁরা জনদুর্ভোগের বিষয়টি বুঝতে পেরেছেন এবং প্রতিনিধিদল পাঠাতে তাঁরা রাজি হন।

সম্পাদনা: রাজু আহমেদ।

Share on FacebookShare on Google+Tweet about this on TwitterPrint this page