বিএনপি ‘মানসিক প্রতিবন্ধী ও বিকারগ্রস্ত’ দল: হানিফ

নিজস্ব প্রতিবেদক, পিটিবিনিউজ.কম। ওয়েবসাইট: www.ptbnewsbd.com

0

বিএনপি ‘মানসিক প্রতিবন্ধী ও বিকারগ্রস্ত’ রাজনৈতিক দল হিসেবে উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ বলেছেন, এ দলের নেতারা অপ্রাসঙ্গিক কথা বলে জনগণের কাছে প্রতিবন্ধী ও বিকারগ্রস্ত হিসেবে নিজেদের প্রমাণ করেছে। আজ শুক্রবার সকালে রাজধানীর ধানমণ্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতি এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার রাজনৈতিক কার্যালয়ে হাওড় অঞ্চল পরিদর্শন করে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভুটান সফর নিয়ে বিএনপির দেয়া বক্তব্যের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

হানিফ বলেন, বিএনপি বিভিন্ন সময়ে অসংলগ্ন, অসঙ্গতিপূর্ণ কথাবার্তা বলে। এতে তারা জনগণের কাছে মানসিকভাবে প্রতিবন্ধী ও বিকারগস্ত রাজনৈতিক দলে পরিণত হয়েছে। এ সময় দলটির মহাসচিব মির্জা ফকরুল ইসলাম আলমগীরকেও ‘অথর্ব ম্যানেজার’ হিসেবে অভিহিত করেছেন তিনি।

দুর্দশাগ্রস্ত হাওড় অঞ্চলের মানুষের জন্য সরকার কিছুই করেনি বিএনপির এমন দাবির জবাবে হানিফ বলেন, বিএনপি হাওড় অঞ্চলের মানুষের দুর্দশা লাঘবে কোনো কাজ না করে মানুষের দুঃখ-দুর্দশা নিয়ে যেভাবে মিথ্যাচার করেছে তা রাজনীতির জন্য খুবই লজ্জাজনক। তিনি বলেন, পাহাড়ি ঢলে হাওড় অঞ্চলে বন্যা শুরুর সঙ্গে সঙ্গেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ সংশ্লিষ্ট সরকারি কর্মকর্তাদের দুর্দশাগ্রস্ত মানুষের পাশে দাঁড়ানোর নির্দেশ দিয়েছেন।

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বলেন, রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ হাওড় অঞ্চলের বাসিন্দা হওয়ায় তিনিও দুর্গত ওই এলাকা পরিদর্শন করেছেন। আর ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বীরবিক্রম ওই হাওড় অঞ্চলেই অবস্থান করছেন।

এ অঞ্চলের ক্ষতিগ্রস্তদের নেওয়া ঋণের সুদ মওকুফ, সহজ শর্তে ঋণদান, এনজিওদের ঋণের টাকার জন্য পিড়াপিড়ি বন্ধ, পানি বিশুদ্ধ করণের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের কথা উল্লেখ করে হানিফ বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসন না হওয়া পর্যন্ত ত্রাণ তৎপরতা অব্যাহত রাখার নির্দেশ দিয়েছেন। তারপরও সরকার বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য কিছুই করেনি- বিএনপির এ ধরনের দায়িত্বজ্ঞানহীন কথা-বার্তায় বোঝা যায়, তাদের রাজনীতি এখনো মিথ্যাচার ও বিভ্রান্তির মধ্যেই পরিচালিত হচ্ছে।

আগামী নির্বাচনে বিএনপিকে কিভাবে অংশগ্রহণ করানো যায় তা সরকারকে ভেবে দেখা উচিত বলে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের মন্তব্যের জবাবে হানিফ বলেন, বিএনপি সত্যিকারভাবেই গণতান্ত্রিক রাজনীতিতে বিশ্বাস করলে আগামী নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে।

বিএনপি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে বলে আশা প্রকাশ করে তিনি বলেন, সংবিধান অনুযায়ী নির্ধারিত সময়ের মধেই আগামী জাতীয় নির্বাচন হবে। আর রাজনৈতিক দল হিসেবে তারা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে কি করবে না, তা তাদের নিজস্ব ব্যাপার।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, দপ্তর সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক অ্যাডভোকেট আফজাল হোসেন, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, কৃষি ও সমবায় বিষয়ক সম্পাদক ফরিদুন্নাহার লাইলী, স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ডা. রোকেয়া সুলতানা, শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক শামসুন নাহার চাঁপা, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক প্রকৌশলী আব্দুস সবুর, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য এস এম কামাল হোসেন, গোলাম রব্বানী চিনু ও মারুফা আক্তার পপি প্রমূখ।

সম্পাদনা : অরুন দাস।

Share on FacebookShare on Google+Tweet about this on TwitterPrint this page