নৌ পরিবহন কর্মকর্তাদের ৩-৪টি করে পদ নিয়ে প্রশ্ন

নিজস্ব প্রতিবেদক, পিটিবিনিউজবিডি.কম

0

নৌ পরিবহন অধিদপ্তরসহ (পূর্ববর্তী নাম সমুদ্র পরিবহন অধিদপ্তর) নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়ের অধীনে বিভিন্ন সংস্থায় কর্মরত উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা অনেকেই একাধিক গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করছেন। তা নিয়ে জোরালো প্রশ্ন তুলেছে চারটি বেসরকারি সংগঠন।

Bangladesh Government logo.
Bangladesh Government logo.

আজ সোমবার (১৬ মে) এক যৌথ বিবৃতিতে পরিবেশ ও নাগরিক অধিকার সংরক্ষণ-বিষয়ক সংগঠনগুলো বলেছে, একেকজন কর্মকর্তার জন্য ক’টি করে পদ ও দায়িত্ব রয়েছে জাতীয় স্বার্থে দেশবাসী তা জানতে চায়।

নৌ পরিবহন অধিদপ্তর, ন্যাশনাল মেরিটাইম ইনস্টিটিউটের (এনএমআই) দু’জন কর্মকর্তার অস্বাভাবিক দায়িত্ব পালন নিয়েও জোরালো প্রশ্ন তুলেছেন এসব সংগঠনের নেতারা।

বিবৃতিদাতা সংগঠনগুলো ও এর নেতারা হলেন- সিটিজেন্স রাইট্স মুভমেন্টের সভাপতি মেজর (অব.) মো. মফিজুল হক সরকার, বাংলাদেশ যাত্রী অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের সভাপতি তুসার রেহমান, মিডিয়া ফোরাম ফর হিউম্যান রাইট্স এন্ড এনভায়রণমেন্টাল ডেভেলপমেন্টের (মেড) নির্বাহী পরিচালক রফিকুল ইসলাম সবুজ এবং নদী রক্ষা শপথের (নরশ) আহ্বায়ক জসি সিকদার।

বিবৃতিতে বলা হয়, একাধিক কর্মকর্তা ‘চার্টার অব ডিউটিজ’ বহির্ভুতভাবে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করছেন। সরকারি কর্ম কমিশনের (পিএসসি) মাধ্যমে নিয়োগপ্রাপ্ত পদের অতিরিক্ত ৩-৪টি দায়িত্ব পালনের নজিরও রয়েছে।

নৌ পরিবহন অধিদপ্তর
বিবৃতিতে বলা হয়, পিএসসির মাধ্যমে পাঁচ বছর আগে নৌ পরিবহন অধিদপ্তরে সমুদ্রগামী জাহাজের নাবিকদের এক্সামিনার (পরীক্ষক) হিসেবে নিয়োগ পান প্রকৌশলী এস এম নাজমুল হক। তবে তিনি কর্মস্থলে যোগদানের পরপরই অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের সিদ্ধান্তে ‘ইঞ্জিনিয়ার এন্ড শিপ সার্ভেয়ার এন্ড এক্সামিনার’ এর অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন শুরু করেন। এছাড়া ‘চার্টার অব ডিউটিজ’- তাঁর এ অভ্যন্তরীণ জাহাজের ড্রাইভারদের পরীক্ষা নেওয়ার বিধান না থাকলেও বিধি-বিধান লঙ্ঘণ করে তাঁকে অভ্যন্তরীণ জাহাজের পরীক্ষা কমিটিতে রাখা হয়েছে।

এই কর্মকর্তাকে ২০১৪ সালে গ্লোবাল মেরিণ ডিস্ট্রেস এন্ড সেফটি সিস্টেম (জিএমডিএসএস) এর প্রকল্প পরিচালক নিযুক্ত করে নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়। দক্ষিণ কোরিয়া ও বাংলাদেশের যৌথ অর্থায়নে গৃহীত প্রায় ৪০০ কোটি টাকার এ প্রকল্পের মেয়াদ আগামী ডিসেম্বরে শেষ হওয়ার কথা থাকলেও প্রকল্পের মূল কাজ এখনো শুরু করতে পারেননি নাজমুল হক।

এনএমআই প্রিন্সিপাল চার পদে!
বিবৃতিতে বলা হয়, চট্টগ্রামের ন্যাশনাল মেরিটাইম ইনস্টিটিউটের (এনএমআই) প্রিন্সিপাল ক্যাপ্টেন ফয়সাল আজিম চারটি গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করছেন। এর তিনটি-ই তাঁর নির্ধারিত (নিয়োগপ্রাপ্ত পদ) দায়িত্বের অতিরিক্ত।

এই কর্মকর্তা চট্টগ্রাম শিপিং অফিসের প্রধান তথা ‘শিপিং মাস্টার’, নৌ বাণিজ্য দপ্তরের খন্ডকালীন ‘ইঞ্জিনিয়ার এন্ড শিপ সার্ভেয়ার’ এবং ফরিদপুরে নাবিক প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠানের প্রধান তিনি। অথচ তাঁর মূল পদ এনএমআই’র প্রিন্সিপাল।

বিবৃতিতে বলা হয়, একজন সরকারি কর্মকর্তা একসঙ্গে চারটি আলাদা প্রতিষ্ঠানে দায়িত্ব পালন করছেন; যার তিনটিতেই তিনি শীর্ষ পদে। এভাবে রাষ্ট্রীয় গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করা সম্ভব কিনা তা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন বিবৃতিদাতারা।

এছাড়া ‘শিপিং মাস্টার’ এনএমআই প্রিন্সিপালের একধাপ নিচের পদ। তাই আজিম কেনো ভিন্ন প্রতিষ্ঠানে একধাপ নিচের পদে যোগ দিলেন তা নিয়েও জোরালো প্রশ্ন উঠেছে। তাই স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার স্বার্থে শিপিং মাস্টার ও নৌ বাণিজ্য দপ্তরের সার্ভেয়ারের দায়িত্ব থেকে তাঁকে অবিলম্বে প্রত্যাহার করা উচিত বলে বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়।

সম্পাদনা: শেখ সিরাজ আহমেদ।

Share on FacebookShare on Google+Tweet about this on TwitterPrint this page