নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের জন্য সদা প্রস্তুত বিএনপি: গয়েশ্বর

নিজস্ব প্রতিবেদক, পিটিবিনিউজ.কম। ওয়েবসাইট: www.ptbnewsbd.com

0

নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনের জন্য বিএনপি সদা প্রস্তুত বলে জানিয়েছেন দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়। আজ শুক্রবার (১৯ মে) দুপুরে ঢাকা মহানগর উত্তর-দক্ষিণ জাতীয়তাবাদী স্বেচ্ছাসেবক দলের নতুন কমিটির নেতা-কর্মীদের নিয়ে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের কবরে ফুল দেয়ার পর সাংবাদিকদের কাছে তিনি এসব কথা বলেন।

গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, বিএনপি বহুদলীয় গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করেছে। বিএনপি নির্বাচনে বিশ্বাস করে। জনগণের ভোটের মাধ্যমেই ক্ষমতা পরিবর্তন হোক তা চায়। জনগণই ক্ষমতার অধিকারী। তাই আমরা নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত। তবে শেখ হাসিনার অধীনে নয়, নিরপেক্ষ সরকার ও নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশনের অধীনে নির্বাচনের জন্য বিএনপি সদা প্রস্তুত।

আওয়ামী লীগ সকারের অধীনে বিএনপি নির্বাচনে যাবে কি না এমন প্রশ্নের জবাবে গয়েশ্বর বলেন, সরকার আবারো ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির মতো নির্বাচনের পায়তারা করছে। আগামীতে আর এক তরফা নির্বাচন হবে না। দেশের মানুষ একদলীয় নির্বাচন প্রত্যাখ্যান করে দেশব্যাপী আন্দোলন গড়ে তুলবে।

দল গঠনের জন্য বিএনপির বিভিন্ন জেলায় কর্মী সমাবেশে বিশৃঙ্খলার কারণ জানতে চাইলে বিএনপির এই নেতা বলেন, দলের পরিধি বাড়ছে। গণতান্ত্রিক পরিবেশ না থাকার কারণে কেন্দ্রীয় এবং জেলা বা থানায় বিভিন্ন কর্মসূচি অনেক দিন হয়নি। অনেকদিন পরে এই কর্মীসভাকে ঘিরে দলের সকল পর্যায়ের নেতা-কর্মী ও  সমর্থকদের মধ্যে এক ধরনের উৎসাহ, উদ্দিপনা দেখা দিয়েছে। তবে অতীতের বিভিন্ন ঘটনায় অনেকের অভিমানও আছে। সেগুলোকে আমরা নেগেটিভ ভাবে দেখি না। কারণ বিএনপি দেশের বৃহত্তর দল।  এ ধরনের বড় দলে এমন ছোটখাটো ঘটনাকে বড় করে দেখার কোনো সুযোগ নেই। মূলত যে উদ্দেশ্য নিয়ে বিভিন্ন জেলা সফর করা হয়েছে, সেই উদ্দেশ্যে দলের তৃণমুল নেতা-কর্মীরা সাড়া দিয়েছে। দুই একজন নেতার অভিযোগ থাকতেই পারে, তবে সে অভিযোগগুলো প্রকট না।

রাজশাহীতে তেমন বড় কোনো ঘটনা ঘটেনি বলেও দাবি করেন গয়েশ্বর চন্দ্র রায়।

এ সময় স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি শফিউল বারী বাবু ও সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদের ভুঁইয়া জুয়েলসহ কেন্দ্রীয় ও মহানগর উত্তর-দক্ষিণ স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতা-কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। জিয়ার কবরে শ্রদ্ধা জানানোর পর মোনাজাত করা হয়।

সম্পাদনা : অরুন দাস।

Share on FacebookShare on Google+Tweet about this on TwitterPrint this page