নতুনভাবে সক্রিয় হওয়ার চেষ্টায় জঙ্গিরা, সতর্কতা

নিজস্ব প্রতিবেদক, পিটিবিনিউজ.কম। ওয়েবসাইট: www.ptbnewsbd.com

0

রাজধানীর গুলশানের হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁ ও কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়ায় হামলার পর বেশ কয়েক মাস জঙ্গিদের দৃশ্যমান তৎপরতা ছিলো না। কিন্তু ১৭ মার্চ উত্তরায় র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‍্যাব) ক্যাম্পে আত্মঘাতী জঙ্গি হামলার অপচেষ্টা, টঙ্গীতে হরকাতুল জিহাদ অব বাংলাদেশের (হুজিবি) শীর্ষ নেতা মুফতি হান্নানকে ছিনিয়ে নেওয়ার ব্যর্থ চেষ্টা, কুমিল্লায় শক্তিশালী বোমাসহ নব্য জেএমবির দুই সদস্য গ্রেপ্তার ও সীতাকুণ্ডে দুটি আস্তানায় অভিযান চালানোর পর আত্মঘাতী নারী জঙ্গিসহ পাঁচজন নিহত হওয়ার ঘটনা প্রমাণ করে জঙ্গিরা আবারো তৎপর হয়ে উঠেছে। সর্বশেষ ১৮ মার্চ, শনিবার ভোর সাড়ে ৪টার দিকে খিলগাঁওয়ে শেখের জায়গা এলাকায় র‍্যাবের তল্লাশি চৌকিতে হামলার চেষ্টার সময় হামলাকারী যুবক নিহত হয়েছেন। তিনি আত্মঘাতী জঙ্গি বলে ধারণা করছে র‌্যাব। তাৎক্ষণিকভাবে তাঁর নাম পরিচয় জানা যায়নি। এদিকে, উত্তরার ঘটনার পর দেশের সব কারাগার, অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে সতর্কতা জারি করেছে কর্তৃপক্ষ।

অপরদিকে, সীতাকুণ্ডের জঙ্গি আস্তানা থেকে উদ্ধার করা সরঞ্জাম, বিভিন্ন আলামত ও হামলার ধরন থেকে সংশ্লিষ্টরা মনে করছেন, নতুন কৌশল নিয়ে এবার মাঠে নেমেছে জঙ্গিরা। অথচ, ১৪ মার্চ এক অনুষ্ঠানে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম বলেছিলেন, বাংলাদেশে জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস) বা অন্য কোনো আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর উপস্থিতি নেই। যারা আছে তারা দেশীয় জঙ্গি সংগঠনের সদস্য (হোম গ্রোন)।

র‍্যাবের তল্লাশি চৌকিতে হামলার চেষ্টা
১৮ মার্চ সকাল সাড়ে ৯টার দিকে ঘটনাস্থলে এক ব্রিফিংয়ে র‍্যাব-৩-এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল তুহিন মোহাম্মদ মাসুদ বলেন, শনিবার ভোরে মোটরসাইকেল আরোহী ওই যুবক তল্লাশি চৌকির কাছাকাছি আসলে র‍্যাব সদস্যরা তাঁকে থামতে বলেন। কিন্তু তিনি না থেমে ‘ক্রস’ করার চেষ্টা করেন। এ অবস্থায় পরিস্থিতির কারণে তাঁকে গুলি করে র‍্যাব। এতে তিনি নিহত হন। আহত হন দুই র‍্যাব সদস্য। নিহত ব্যক্তির মাথার কাছে একটি ব্যাগ ও লাল রঙের মোটরসাইকেল পড়ে থাকতে দেখা গেছে। তবে যুবকের মোটরসাইকেলের নম্বরপ্লেট নেই। ওই যুবকের পরনে ছিলো শার্ট ও জিনসের প্যান্ট।

র‌্যাব-৩ এর অপারেশন কর্মকর্তা এএসএম সাখাওয়াত হোসেন বলেন, সে (হামলাকারী) হাত থেকে কিছু ছুড়ে মারার চেষ্টা করছিলো। তখন তাঁকে চ্যালেঞ্জ করে র‍্যাব সদস্যরা গুলি ছুড়লে নিহত হন। পরে তার দেহে বাঁধা প্রচুর বিস্ফোরক পাওয়া গেছে।

সকাল সাড়ে ১০টায় তুহিন আরো বলেন, যুবকের শরীরে বাঁধা অবস্থায় উদ্ধারকৃত একটি বন্ধনী থেকে কয়েকটি বোমা পাওয়া গেছে। এছাড়া, যুবকের সঙ্গে থাকা ব্যাগের মধ্যে হাতে তৈরি বড় একটি বোমা পাওয়া গেছে। বোমা নিষ্ক্রিয় করার কাজ চলছে।

র‍্যাব সদর দপ্তরের ফোর্সেস ব্যারাকে আত্মঘাতী হামলা
১৭ মার্চ, শুক্রবার বেলা ১টার দিকে ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের অদূরে র‍্যাব সদর দপ্তরের ফোর্সেস ব্যারাকে আত্মঘাতী হামলার ঘটনা ঘটে। এতে র‍্যাবের দুই সদস্য আহত হন। দেশের আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর স্থাপনার ভেতরে জঙ্গিদের এ ধরনের হামলা এটাই প্রথম।

জানা যায়, ১৭ মার্চ দুপুর ১টার দিকে উত্তরার আশকোনায় প্রস্তাবিত র‍্যাব সদর দপ্তরের সীমানাপ্রাচীর টপকে এক যুবক ভেতরে প্রবেশ করেন। অপরিচিত লোক দেখে তাঁকে চ্যালেঞ্জ করে র‍্যাব। একপর্যায়ে যুবক তাঁর শরীরের সঙ্গে থাকা বোমার বিস্ফোরণ ঘটান। বিস্ফোরণে ওই যুবক ঘটনাস্থলেই নিহত হন। তাঁর শরীর ছিন্নভিন্ন হয়ে গেছে। ‘আত্মঘাতী’ বিস্ফোরণের ঘটনায় র‍্যাবের দুই সদস্য আহত হয়েছেন। তাঁদের হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

এদিকে, আশকোনায় হাজি ক্যাম্পের কাছে র‌্যাবের একটি অস্থায়ী ক্যাম্পে ‘আত্মঘাতী’ বিস্ফোরণের দায় স্বীকার করেছে আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেট (আইএস)। ১৭ মার্চ দুপুরে আত্মঘাতী ওই বিস্ফোরণের পর আইএস দায় স্বীকার করে বিবৃতি দেয় বলে জানায় জঙ্গি গোষ্ঠীটির সংবাদ মাধ্যম হিসেবে পরিচিত ‘আমাক’।

বিমানবন্দর ও কারাগারে সতর্কতা
দেশের সব বিমানবন্দর ও কারাগারে সতর্কতা জারি করেছে কর্তৃপক্ষ। অতিরিক্ত কারা মহাপরিদর্শক ইকবাল হাসান বলেন, ১৭ মার্চ উত্তরার ঘটনার পর সব দেশের কারাগারগুলোতে অধিকতর সতর্কতা ও নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এটি ‘রেড অ্যালার্ট’ নয়, তবে সবাইকে ‘অধিকতর সতর্কতা’ অবলম্বন করতে বলা হয়েছে। প্রসঙ্গত, সারা দেশে মোট ৬৮ কারাগারে ৭০ হাজারের বেশি বন্দি রয়েছে বলে জানিয়েছে কারা কর্তৃপক্ষ ।

ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের জেল সুপার জাহাঙ্গীর কবির বলেন, আমরা সব সময়ই সতর্ক। যেহেতু একটি ঘটনা ঘটেছে, তাই ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ আমাদেরকে নিরাপত্তা আরো  জোরদার করতে নির্দেশ দিয়েছেন।

এদিকে, দেশের বিমাবন্দরগুলোতেও বাড়তি সতর্কতার নির্দেশনা দিয়েছে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়। এই মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা মাহবুবুর রহমান তুহিন বলেন, মন্ত্রণালয় থেকে দেশের সব বিমানবন্দরে অধিকতর সতর্কতার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

সীতাকুণ্ডে অভিযানে চার জঙ্গি নিহত
চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডের পৌর এলাকার ৫ নম্বর প্রেমতলা ওয়ার্ডে ‘ছায়ানীড়’ নামে একটি দ্বিতল ভবন ১৫ মার্চ বিকাল থেকে ঘিরে রাখে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। শুরুতে জঙ্গিদের তরফ থেকে কয়েক দফা গ্রেনেড হামলা এবং রাতভর গোলাগুলির পর ১৬ মার্চ সকালে শুরু হয় পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট ও সোয়াটের ‘অপারেশন অ্যাসল্ট সিক্সটিন’। সোয়াট সদস্যরা পাশের একটি বাড়ি থেকে ছাদ হয়ে ভেতরে ঢোকার চেষ্টা করলে জঙ্গিরা ‘আল্লাহু আকবর’ ধ্বনি দিয়ে সেখানে বড় ধরনের আত্মঘাতি বিস্ফোরণ ঘটায়। জঙ্গিরা দোতলায় দুটি ঘরে ছিলো। সেখানে প্রচুর বিস্ফোরক রয়েছে। ছাদেও প্রচুর বোমার মজুদ দেখা গেছে। সর্বপুরি বিস্ফোরণ ও গুলিতে এক নারীসহ চার ‘জঙ্গির’ মৃত্যুর মধ্য দিয়ে আমাদের অপারেশন শেষ হয়। ১৬ মার্চ সকালে পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি সফিকুল ইসলাম সাংবাদিকদের এই তথ্য জানিয়ে বলেন, আমরা এখন পর্যন্ত চারটি ডেডবডি সেখানে দেখেছি। তাদের দুজনের শরীরে ছিলো সুইসাইড ভেস্ট। বিস্ফোরণে তাদের মৃত্যু হয়েছে। দেহগুলো ছিন্নভিন্ন হয়ে গেছে। দুজন মারা গেছে পুলিশের গুলিতে। ভেতরে আর কেউ নেই।

সীতাকুণ্ডের জঙ্গি আস্তানা থেকে উদ্ধার করা সরঞ্জাম, বিভিন্ন আলামত ও হামলার ধরন থেকে সংশ্লিষ্টরা মনে করছেন, নতুন কৌশল নিয়ে এবার মাঠে নেমেছে জঙ্গিরা। আত্মঘাতী হামলায় ব্যবহৃত সরঞ্জাম ও বড় ধরনের বোমা পাওয়া গেছে এ আস্তানায়। জঙ্গি আস্তানা থেকে এর আগে বিভিন্ন সময় যে ধরনের বোমা পাওয়া গেছে, সেগুলোর তুলনায় বর্তমানে পাওয়া বোমার আকার ৫-৬ গুণ বড়। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, জনসচেতনতা বাড়ানোর প্রচেষ্টা ও জঙ্গিদের বিরুদ্ধে নিরবচ্ছিন্ন গোয়েন্দা তৎপরতা অব্যাহত না রাখলে জঙ্গি তৎপরতা আরো বেড়ে যেতে পারে।

আবারো সংঘবদ্ধ হচ্ছে জঙ্গিরা: পুলিশ
কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের ডিসি মুহিবুল ইসলাম খান বলেন, জঙ্গিরা আবারো হয়তো কোনো না কোনোভাবে সংঘবদ্ধ হয়েছে। অনেক দিন ধরে যারা পলাতক ছিলো, তারাও নতুনভাবে সক্রিয় হওয়ার চেষ্টা করছে। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতায় অতীতে জঙ্গিদের কার্যক্রম রুখে দেয়া হয়েছে। এবারো তার ব্যত্যয় হবে না।

দেশকে জঙ্গিবাদমুক্ত রাখতে জনমত গড়ে তুলুন: প্রধানমন্ত্রী
১৬ মার্চ রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে এক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছিলেন, জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবাদ শুধুমাত্র বাংলাদেশেই নয় এখন বিশ্বব্যাপীই একটি উদ্বেগজনক সমস্যা হিসেবে দেখা দিয়েছে। এই সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে লড়াই ও জনমত সৃষ্টতে সকলের সহযোগিতা প্রত্যাশা করেছেন। তিনি আরো বলেন, বর্তমান সরকার সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ মোকাবিলায় দৃঢ়প্রতিজ্ঞ। তাই দেশে কোনো সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদের স্থান হবে না। এসবের বিরুদ্ধে আরো যথাযথ ব্যবস্থা নেবো।

দেশে আইএস নেই: পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী
১৪ মার্চ রাজধানীর প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও হোটেলে তিন দিনব্যাপী পুলিশপ্রধানদের আন্তর্জাতিক সম্মেলনের সমাপনী অনুষ্ঠানে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম বলেছিলেন, গত কয়েক বছর ধরে আমরা বিশ্বে জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবাদের উত্থান প্রত্যক্ষ করছি। এর ‘স্পিলওভার এফেক্ট’ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে দেখা যাচ্ছে। কিন্তু বাংলাদেশে জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস) বা অন্য কোনো আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর উপস্থিতি নেই। যারা আছে তারা দেশীয় জঙ্গি সংগঠনের সদস্য (হোম গ্রোন)।

শাহরিয়ার আলম বলেন, বাংলাদেশের জঙ্গিরা হোম গ্রোন। আজকে পর্যন্ত বিদেশি কোনো গোষ্ঠীর সঙ্গে তাদের যোগাযোগের তথ্য পাওয়া যায়নি। তবে আন্তর্জাতিক গোষ্ঠীগুলোর প্রভাব বিস্তারের একটা চেষ্টা থাকতে পারে। সে জন্য বাংলাদেশ মনে করে আন্তঃদেশীয় সহযোগিতা থাকা দরকার। বাংলাদেশ সরকার জঙ্গিবাদ দমনে অন্যান্য দেশের সঙ্গে কার্যকর সহযোগিতাপূর্ণ সম্পর্ক রাখতে চায়।

এর আগে ১৩ মার্চ আইজিপি এ কে এম শহীদুল হকও বলেছিলেন, আইএসের সঙ্গে এ দেশের জঙ্গিদের কোনো যোগাযোগ নেই।

দেশে আইএস নেই, আছে জামাতের প্রেতাত্মা: আইনমন্ত্রী
সম্প্রতি এক অনুষ্ঠানে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছিলেন, দেশে জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস) বলতে কোনো কিছু নেই। আছে জামাতে ইসলামীর প্রেতাত্মা। যাদের কাজ দেশে অস্থিতিশীলতা সৃ্টি করা, তারাই ২০১৬ সালের ১ জুলাই গুলশানের ‘হোলি আর্টিজান বেকারি এন্ড ও কিচেন রেস্তোরাঁ’য় হামলার ঘটনা ঘটিয়েছে।

দেশে আল কায়দা ও আইএস’র অস্তিত্ব নেই: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
৪ মার্চ ভোলার চরফ্যাসন উপজেলায় সরকারি কলেজে সুধী সমাবেশ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল জানিয়েছিলেন, দেশে আল কায়দা ও জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেটের (আইএস) কোনো অস্তিত্ব নেই। তিনি আরো বলেছিলেন, জঙ্গিগোষ্ঠী না থাকলেও দেশে তৈরি কিছু সন্ত্রাসী বাহিনী রয়েছে। ইতিমধ্যে আমাদের নিরাপত্তা বাহিনী যথার্থভাবে তাদের মোকাবেলা করতে সক্ষম হয়েছে।

সম্পাদনা: রাজু আহমেদ।

Share on FacebookShare on Google+Tweet about this on TwitterPrint this page